• Breaking News

    ‘খানিকটা’ ইব্রার মতো গোল শরনের!

    মোহনবাগান ১ ভবানীপুর ০
    শরন সিং, ৭


    13924892_10155291459484762_7430020223347038475_nরাইট স্পোর্টস ডেস্ক
    অনেক অনেক দূরের তারকা জ্লাটান ইব্রাহিমোভিচ। বহু দিন ধরে, বহু দেশ ঘুরে তিনি এখন ইংল্যান্ডের ক্লাবে। গোলের সামনে তাঁর নানা ধরনের কসরৎ, বিশেষত ইউটিউব দুনিয়ায় খুব প্রচলিত। প্রতিটিই দেখতে সুন্দর, তিনি করার আগে মনেই হয় না, কেউ অমন চেষ্টা করতে পারেন। অভাবনীয়, কোনও কোনও সময় অতিমানবীয়ও। অন্য কেউ চেষ্টাই করতে পারবেন না।
    ভবানীপুরের বিরুদ্ধে মোহনবাগানের যে-গোলটা শরন সিং করলেন, ‘খানিকটা’ ইব্রা-স্টাইল! বাঁদিক থেকে আজহারউদ্দিন বলটা রেখেছিলেন উঁচু করে। ভবানীপুরের দুই ডিফেন্ডারের মাঝে বলটা পড়ছিল যখন, শরনের মুখ ছিল আজহারের দিকেই। লাফিয়ে ডান পা বাড়িয়ে বলে ‘কানেক্ট’ করলেন, নিখুঁত। বল ভবানীপুরের গোলরক্ষক বুবাইকে হতচকিত করে দূরের পোস্টে। দুর্দান্ত গোল! ইব্রার মতো বললে বেশি বলা হবে, কিন্তু, খানিকটা ওই ধরনের, অবশ্যই। গোলরক্ষককে অবাক করে দিতে যথেষ্ট। আর, ওই গোলেই এল মোহনবাগানের তিন পয়েন্ট।
    তারপর যে কী হল মোহনবাগানের! প্রথমার্ধ তবুও কয়েকটা চেষ্টা হল, দ্বিতীয়ার্ধে যেন দাঁড়িয়ে গেল গোটা দলই। হঠাৎ, কারণবিহীন। উল্টে তখন দাপট সৃঞ্জয় বসুর ভবানীপুরের। কোচ দেবজিৎ ঘোষ প্রথমার্ধেই লালকমল ভৌমিককে নামিয়েছিলেন ৩১ মিনিটে। দ্বিতীয়ার্ধে সেই লালকমল বারবার বিপজ্জনক। দ্বিতীয়ার্ধের একেবারে শুরুতে রাজু গায়কোয়াড় নিশ্চিত গোল বাঁচিয়ে ম্যাচের সেরা। আর, বলার মতো মোহনবাগানের নতুন বিদেশি হারুন আমিরির ফ্রি কিক, যা পোস্ট আর বারের সংযোগস্থলে লেগে ফিরে এসেছিল।
    দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে এসে আমিরি তবু চেষ্টা করেছিলেন দলকে জাগাতে। কিন্তু, সেই উজ্জীবিত ফুটবল, যা দেখা গিয়েছিল মোহনবাগানের প্রথম দুই ম্যাচে, অনুপস্থিত চতুর্থ ম্যাচে। প্রথম ম্যাচে হ্যাটট্রিকের পর ডাফি একেবারেই নিষ্প্রভ। আগের দিন অঝোর বৃষ্টির মাঠে বিদেশি ডাফির তত ভাল না-খেলার কারণ ছিল, বৃহস্পতিবারও কিন্তু জ্বলে উঠতে পারলেন না। ফলে, বিশেষজ্ঞরাও শুরু করলেন ডাফির দক্ষকা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে।
    দেবজিতের ভবানীপুর খারাপ খেলছে না, কিন্তু পাচ্ছে না গোল! ফুটবলে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব যার। একটাই সুবিধা, ইস্টবেঙ্গল, মহমেডান এবং মোহনবাগান, চারের মধ্যে তিন ম্যাচে খেলে ফেলেছে বড় দলগুলোর সঙ্গে। পয়েন্ট ১, আছে নবম স্থানে, ঠিক। কিন্তু, এই পারফরম্যান্স ধরে রাখতে পারলে বাকি দলগুলির বিরুদ্ধে কিছু ম্যাচ অন্তত জেতা উচিত ভবানীপুরের।
    মোহনবাগানের তিন পয়েন্ট এল, শীর্ষস্থানও থাকল। বড় ম্যাচের আগে সম্ভবত শেষ ম্যাচ পিয়ারলেসের বিরুদ্ধে, আগামী ২২ অগাস্ট। আইএফএ বৃহস্পতিবার কলকাতা ফুটবল লিগের সূচি জানিয়েছে, সরকারিভাবে ২৬ অগাস্ট পর্যন্ত। তাই বড় ম্যাচ কবে কোথায়, সরকারি তথ্য এখনও অজানা!

    No comments