• Breaking News

    আইএসএল থেকে উপকৃত হতে পারে ভারতীয় ফুটবলাররা – কনস্টান্টাইন

    প্রেস রিলিজstephen-constantine_3

    ভারতীয় ফুটবল দলের কোচ স্টিফেন কনস্টান্টাইন মনে করছেন, ইন্ডিয়ান সুপার লিগে খেলে উপকৃত হতে পারেন ভারতীয় ফুটবলাররা। আন্তর্জাতিক ফুটবলারদের সঙ্গে থেকে এবং ভাল বিদেশি কোচদের প্রশিক্ষণে, উন্নতি সম্ভব।

    ২০১৪ সালে শুরু হয়েছিল আইএসএল। তারপর থেকে বহু আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ফুটবলার এসেছেন ভারতে খেলতে, বিশ্বের তাবড় লিগগুলোয় খেলার অভিজ্ঞতা যাঁদের সঙ্গী। কনস্টান্টাইন মনে করেন, এমন ফুটবলার, ভারতে আসার আগে অনেক উঁচু স্তরে ফুটবল খেলে এসেছেন যাঁরা, তাঁদের থেকে অনেক কিছু শেখার আছে ভারতীয় ফুটবলারদের।

    ‘আইএসএল-এর সবচেয়ে ইতিবাচক দিক হল, বিদেশি ফুটবলারদের সঙ্গে থেকে তাঁদের অভিজ্ঞতার গল্প শোনা। বিদেশি যারা আসছে আইএসএল-এ খেলতে, অনেক উঁচু স্তরে ফুটবল খেলেছে। আন্তর্জাতিক ফুটবলে তাদের অভিজ্ঞতা তারা ভাগ করে নিচ্ছে ভারতীয় ফুটবলারদের সঙ্গে। ফলে ইতিবাচক প্রভাব পড়ছে ভারতীয় ফুটবলারদের ওপর। ওদের কাছ থেকে যতটা বেশি সম্ভব শিখে নেওয়াটাই এখন কাজ ভারতীয় ফুটবলারদের। দুর্দান্ত সুযোগ ভারতীয়দের কাছে। সবারই উচিত এই সুযোগটা যত বেশি সম্ভব কাজে লাগানো। রোজ রোজ এমন সুযোগ কিন্তু পাওয়া যায় না’, বলেছেন কনস্টান্টাইন, ভারতীয় ফুটবলে আইএসএল-এর ইতিবাচক প্রভাব প্রসঙ্গে আলোচনায়।

    শুধু ফুটবলাররাই নয়, আইএসএল-এ কাজ করতে এসেছেন বিশ্বের নানা প্রান্তের বহু বিখ্যাত কোচও। ব্রাজিল থেকে এসেছেন কিংবদন্তি জিকো, এফসি গোয়াতে এবার যাঁর তৃতীয় মরসুম। মার্কো মাতেরাজ্জিও আছেন, বিশ্বজয়ী ইতালীয় ফুটবলার,চেন্নাইয়িন এফসি-তে। এই দুজন সবচেয়ে বিখ্যাত কোচ ছাড়া বাকিরাও আছেন যারা বিশ্বের নানা বড় বড় ক্লাবে দায়িত্ব সামলেছেন। কনস্টান্টাইন মনে করছেন, এই সব কোচদের কাছ থেকেও অনেক কিছু শিখে নিতে পারেন ভারতীয় ফুটবলাররা।

    ‘আইএসএল-এর আরও গুরুত্বপূর্ণ দিক এই কোচদের উপস্থিতি। ফুটবলাররা আরও উন্নতি করতে পারে তখনই যখন কোনও ভাল কোচের প্রশিক্ষণে খেলে। এই সুযোগটাও এনে দিচ্ছে আইএসএল। আশা করছি, ভারতীয় ফুটবলাররা ব্যাপারটা ঠিকভাবেই নেবে। কৌতূহলী হতে হবে, প্রশ্ন করতে হবে, জেনে ও শিখে নিতে হবে তাঁদের থেকে। যখন সেটা পারবে তখনই আরও উন্নতি হবে ভারতীয় ফুটবলের। শেখার কোনও শেষ নেই যেমন, কোনও বিকল্পও নেই’, বলেছেন কনস্টান্টাইন, ভারতের জাতীয় ফুটবল দলের দায়িত্ব নিয়েছেন যিনি দ্বিতীয়বার।

    আইএসএল-এর উত্তেজনার আঁচে নিজেদের সেঁকে নেওয়ার সুযোগটাও হাতছাড়া করা উচিত নয় ভারতীয় ফুটবল ভক্তদের, মত কনস্টান্টাইনের।

    ‘ভারতের সাধারণ মানুষের ফুটবল-সম্পর্কিত জ্ঞানের লেখচিত্রও ঊর্ধ্বমুখী এখন, আইএসএল-এর কারণে। আরও বেশি মানুষ আকৃষ্ট হচ্ছেন ফুটবলের প্রতি। যেভাবে তুলে ধরা হচ্ছে ফুটবলকে এবং যে মানের ফুটবল পাওয়া যাচ্ছে আইএসএল-এ, দুর্দান্ত। প্রাপ্তির খাতা উপচে উঠছে ভারতীয় ফুটবল ভক্তেরও কারণ প্রতি সপ্তাহেই এতগুলো ভাল ম্যাচ যে, কোনটা ছেড়ে কোনটা দেখবেন, ঠিক করে উঠতেই পারছেন না কেউ! সপ্তাহান্তের জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে না। রোজই সন্ধেবেলা একটি করে দুরন্ত ম্যাচ। এর চেয়ে বেশি আর কী চাই’, বলেছেন কনস্টান্টাইন।

    No comments