• Breaking News

    ভিনগাদা : দু-দলের কাছেই যেন বিশ্বকাপ ফাইনাল!

    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ

    [caption id="attachment_2696" align="alignleft" width="300"]অনুশীলনে কেরালা ব্লাস্টার্স। ছবি - আইএসএল অনুশীলনে কেরালা ব্লাস্টার্স। ছবি - আইএসএল[/caption]

    তৃতীয় হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগে কেরালা ব্লাস্টার্স এফসি আর নর্থইস্ট ইউনাইটেড এফসি-র ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে রবিবার কোচির জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে ৯০ মিনিটের ওপর।
    জায়গা বাকি একটি। তার জন্য লড়ছে কেরল আর নর্থইস্ট। আর এই দুই দলই খেলবে শেষ ম্যাচ, এবারের আইএসএল-এ গ্রুপ লিগের শেষ ৯০ মিনিট। কেরল জানে এক পয়েন্ট পেলেই তারা পৌঁছে যাবে সেমিফাইনালে। কেরলের আরও সুবিধা,  ঘরের মাঠে খেলবে তারা যেখানে টানা চার ম্যাচ জিতে রয়েছে।
    ‘খেলব, যেভাবে খেলি। কীভাবে খেললে ড্র করা যায়, জানি না! আমরা খেলি এবং চেষ্টা করি জিততে। খেলা চলতে চলতে অবশ্যই কিছু সিদ্ধান্ত বদলাতে বা নিতে হয়। কোচরা চেষ্টা করেন খেলার প্রতি অ্যাপ্রোচ বদলাতে। খেলতে খেলতে অনেক কিছুই হয়, কিছু পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় যা অন্যরকম ভাবায়। কিন্তু খেলার আগে জেতা ছাড়া, জেতার চেষ্টা করা ছাড়া, আর কোনও কিছুই মাথায় থাকে না। তিন পয়েন্টই একমাত্র লক্ষ্য তখন,’ বলেছেন কেরালা ব্লাস্টার্সের কোচ স্টিভ কোপেল, ম্যাচের আগের দিন সাংবাদিক সম্মেলনে।
    ঘরের মাঠে কেরলের দাপট সত্যিই দেখার মতো এবার। টানা চার ম্যাচ জিতেছে। বাইরের মাঠে যদিও একই রকম পারফরম্যান্স দেখাতে পারেনি। কোচ তো স্বীকারই করেছেন, মু্ম্বই তাদের ‘প্যান্ট খুলে দিয়েছিল’ মুম্বই ফুটবল এরিনায়, ০-৫ হারিয়ে। কিন্তু, চেনা মাঠে ফিরে আত্মবিশ্বাস নিশ্চিতভাবেই বাড়বে ফুটবলারদের, বিশেষ করে যখন জেনেই গিয়েছে যে, এবার আইএসএল-এর ফাইনালও হবে কোচিতে, কেরলের ঘরের মাঠে।
    ‘অনেকগুলো মাঠেই খেললাম। কিন্তু কোচির পরিবেশই সবচেয়ে ভাল। সবচেয়ে বেশি মানুষ উপস্থিত থাকতে পারেন মাঠে। লিগ কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ দেব কোচিতে ফাইনাল খেলানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য। ফুটবল ভালবাসেন কেরলবাসী। আমরা ফাইনালে থাকি বা না, কেরলের মানুষ মাঠ ভরিয়ে দেবেন, নিশ্চিত। সবাই দেখবেন, বুঝবেন, কী অসাধারণ পরিবেশ এখানে সৃষ্টি করেন স্থানীয় ফুটবল ভক্তরা,’ বলেছেন কোপেল।
    কেরলকে নিজেদের মাঠে ফাইনালের স্বপ্ন দেখতে হলে নর্থইস্টকে রবিবার থামানো প্রাথমিক লক্ষ্য। সেটাও আবার করতে হবে মেহতাব হোসেনকে ছাড়াই, চতুর্থ হলুদ কার্ড দেখে যিনি এই ম্যাচের বাইরে। নর্থইস্টও কিন্তু প্রথমবার সেমিফাইনালে পৌঁছনোর জন্য মরিয়া।
    ‘নিশ্চিত জানি যে রবিবার মাঠের পরিবেশ অসাধারণ থাকবে। একটা দলের জন্য শেষটা খারাপই হবে কারণ বিদায় নিতে হবে। কিন্তু ফুটবল তো এমনই। অনেকেই বলছেন, আমরা নাকি প্লে অফে জায়গা পাওয়ার মতোই ফুটবল খেলেছি এবং এতদিনে সেরা চারে জায়গা নিশ্চিত করে ফেলা উচিত ছিল। কিন্তু, ফুটবল মানে শুধুই ভাল খেলা নয়, ভাল ফল নিশ্চিত করে ফেলাটাও অন্যতম লক্ষ্য। রবিবার আমাদের তাই একটাই লক্ষ্য – তিন পয়েন্ট। ভাল খেলার কথা লোকে ভুলে গেলেও পারে, ম্যাচের রেজাল্ট কখনও ভোলে না। আশা করছি দুর্দান্ত ম্যাচ হবে রবিবার,’ বলেছেন নর্থইস্টের কোচ নেলো ভিনগাদা।
    ভিনগাদা খুব ভাল করেই জানেন, অন্তত ৫৫ হাজারের গ্যালারির সমর্থন সঙ্গে নিয়ে মাঠে নামবে কেরল যা তাদের বাড়তি সুবিধা। তাঁর কাছে ম্যাচটা ‘বিশ্বকাপ ফাইনালের মতো, দু-দলের কাছেই’। নিজের দলেরও যথেষ্ট সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছেন পর্তুগিজ কোচ।
    ‘হ্যাঁ, ৫০ থেকে ৫৫ হাজার লোক মাঠে থাকবেন, সমর্থন করবেন কেরলকে, যা ওদের সুবিধা, অবশ্যই। কিন্তু সেটাই তো যথেষ্ট নয়। ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত জিতবে মাঠে থাকা ফুটবলাররা। জানি কোচিতে এসে কাজটা কঠিন। তবুও বলছি, যেহেতু আমাদের জিততেই হবে, আমরা এসেছি এখানে জেতার জন্যই,’ বলেছেন ভিনগাদা।
    মনে করা যেতে পারে, এবারের আইএসএল-এ এই দুটি দলই খেলেছিল উদ্বোধনী ম্যাচে যেখানে নিজেদের মাঠে নর্থইস্ট হারিয়েছিল কেরালা ব্লাস্টার্সকে।

    No comments