• Breaking News

    পেনাল্টি নষ্ট করেও জেতালেন সোনিই

    চেন্নাই – ১ মোহনবাগান – ২
    (মার্কোস ৫২) (জেজে ৫৬, সোনি ৭৭)


    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    প্রথম গোল খেল মোহনবাগান। কিন্তু পেনাল্টি থেকে গোলের সুযোগ হারিয়েও প্রথম গোল পেলেন সোনি নর্দে। এবং, মোহনবাগানও ধরে রাখল জয়ের ধারা। চারে চারের পর তাদের সংগ্রহে ১২ পয়েন্ট।
    ঘরের মাঠে টানা তিন ম্যাচ জেতার কোনও গুরুত্বই থাকবে না, বাইরে গিয়েই পা ফস্কালে। তৃতীয় ম্যাচ জেতার পর বলেছিলেন সবুজমেরুনের কোচ সঞ্জয় সেন। তাঁর দলের ফুটবলাররা চাপে পড়েও অ্যাওয়ে ম্যাচে জয় তুলে নিয়ে জানিয়ে দিল, আপাতত মোহনবাগান পয়েন্ট হারানোয় বিশ্বাসী নয়!
    অথচ, সোনির ভুলেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ হাতছাড়া করেছিল মোহনবাগান। ৩৩ মিনিটে পেনাল্টি পেয়েছিল মোহনবাগান, বক্সের মধ্যে সোনিকে পেছন থেকে ক্লেমেন্তে ফাউল করায়। এগিয়ে গিয়েছিলেন সোনিই, পেনাল্টি নিতে। কিন্তু বেশ দুর্বল শট এবং একেবারেই সেই উচ্চতায় যা পছন্দ করেন গোলরক্ষকরা। করনজিৎ ঠিক দিকে ঝাঁপিয়ে বল বের করে দিয়েছিলেন। তার মিনিট তিনেক পরই জেজে লালপেখলুয়া হেড করে জালে বল পাঠালেও সহকারি রেফারি আগেই পতাকা তুলে জানিয়ে দিয়েছিলেন, অফসাইড।
    দ্বিতীয়ার্ধে খেলার গতির বিরুদ্ধে এগিয়ে গিয়েছিল চেন্নাই সিটি এফসি। আর, এই গোল খাওয়ার কথা সহজে ভুলবেন কি সবুজমেরুনের গোলরক্ষক দেবজিৎ? প্রথম পোস্ট ‘কভার’ করে দাঁড়িয়েছিলেন। অল্প যেটুকু ফাঁক সেখান দিয়েই গোলে বল পাঠিয়েছিলেন চেন্নাইয়ের ব্রাজিলীয় মার্কোস ভিনিসিউস। মোহনবাগানের পিছিয়ে পড়া, এবারের আই লিগে প্রথম বার।
    কিন্তু, বেশিক্ষণ পিছিয়ে থাকেনি। সমতা ফেরান জেজে। গোল তৈরির কৃতিত্ব যদিও সোনিরই। বল বাড়িয়েছিলেন ড্যারিল ডাফির জন্য। গত দু-ম্যাচে চার গোল পাওয়া ডাফির শট চেন্নাইয়ের এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে উঠে গিয়েছিল বক্সে। সুযোগসন্ধানী জেজে ছিলেন ঠিক জায়গায়। নিজের তৃতীয় গোল পেতে ভুল করেননি জেজে।
    জয়ের গোল সোনির। প্রায়শ্চিত্ত করলেন পেনাল্টি নষ্টের। পরিবর্ত বলবন্তের থ্রু থেকে বল পেয়ে, মাথা ঠান্ডা রেখে আগুয়ান করণজিৎকে পরাস্ত করে এবারের আই লিগে গোলের খাতা খুললেন সোনি। সঙ্গে নিশ্চিত করলেন তিন পয়েন্টও। ম্যাচের একেবারে শেষ মুহূর্তে তাঁর পাস থেকে প্রবীর দাস যে সুযোগ নষ্ট করলেন, সচরাচর দেখা যায় না। শুধু তিনকাঠিতে শটটা রাখতে হত প্রবীরকে। উড়িয়ে দেন প্রবীর।
    ঘরের মাঠে চেন্নাই সিটি মোটামুটি লড়ল, লিগজয়ের অন্যতম প্রধান দাবিদারদের বিরুদ্ধে। যদিও শেষ পর্যন্ত জিতল অভিজ্ঞতাই। এবার সবুজমেরুনের সামনে ডিএসকে শিবাজিয়ান্স।

    No comments