• Breaking News

    ৪-২ জয়, শেষ আট প্রায় নিশ্চিত সিমিওনের টিমের

    আতলেতিতে নতুন রেকর্ড গ্রিজমানের


    বেয়ার লেভারকুসেন-২ ‌: আতলেতিকো মাদ্রিদ-৪


    (বেল্লারাবি ৪৮, সেভিচ-আত্মঘাতী ৬৭) (নিগেস ১৭, গ্রিজমান ২৫, গামেইরো-পেনাল্টি ৫৮, তোরেস ৮৬)




    [caption id="attachment_2994" align="alignleft" width="584"]গ্রিজমান। ছবি— টুইটার গ্রিজমান। ছবি— টুইটার[/caption]

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক

    এক দিকে যখন আট গোলের বন্যা বইছে, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের অন্য ম্যাচও পিছিয়ে নেই। লেভারকুসেনকে ৪-২ হারিয়ে কোয়ার্টারের পথ অনেকটাই পরিষ্কার করে ফেলল আতলেতিকো মাদ্রিদ। ১৯৯৬ সালের পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বাইরের ম্যাচে এই প্রথম আতলেতি চার গোল দিল প্রতিপক্ষকে।

    চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শেষ আটটা ম্যাচ অপরাজিত ছিল লেভারকুসেন। তাদের ঘরের মাঠে নামার আগে সিমিওনের টিম একটু হলেও প্রতিপক্ষকে নিয়ে চিন্তায় ছিল। নব্বই মিনিটে অবশ্য অন্য ফল দেখা গেল। অ্যাটাকিং ফুটবল দিয়েই লেভারকুসেনকে উড়িয়ে দিলেন গ্রিজমান-নিগেসরা।

    তারই মধ্যে আবার ইউরোপিয়ান ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপে নতুন রেকর্ড করলেন গ্রিজমান। আতলেতিকোর হয়ে ১৩ গোল হয়ে গেল তাঁর। গত বার থেকে ধরলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ১১ গোল করেছেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। ইউরোপা লিগে রয়েছে আরও ২ গোল। টপকে গেলেন ক্লাবের লুইস আরাগোনেসকে (১২)।

    ১৭ মিনিটে নিগেসের বাঁ পায়ের দুরন্ত গোল দিয়ে শুরু। বক্সের ঠিক মাথা থেকে নিগেসের বাঁ পায়ের অবিশ্বাস্য ভলিটা কিপারকে টপকে গোলে ঢুকে যায়। ওখান থেকেই ছন্দ পেয়ে যায় আতলেতি। ২৫ মিনিটে গ্রিজমান ২-০ করেন। কেভিন গামেরিওর পাস থেকে।

    বিরতির পর কিছুটা চেষ্টা করেছিল বেয়ার লেভারকুসেন, ম্যাচে ফেরার। ৪৮ মিনিটে করিম বেল্লারাবি ১-২ করেন। কিন্তু তাতেও চাপ কমানো যায়নি। উল্টে ৫৮ মিনিটে আতলেতিকে পেনাল্টি দিয়ে খেলা প্রায় শেষ করে দেয় লেভারকুসেন। ৩-১ থেকে আবার ৩-২ হয়ে যায়। ব্র্যান্ডেটের একটা জোরালো শট ক্লিয়ার করার জন্য আতলেতি কিপার মোয়া বেরিয়ে আসেন। কিন্তু তার আগেই সেভিচের পায়ে লেগে গোলে ঢুকে যায়। ৮৬ মিনিটে আবার তোরেস ৪-২ করেন।

    সিমিওনে বলেছেন, ‘আমরা আরও বেশি ব্যবধানে জিততে পারতাম। কিন্তু ওদের কিপার দুটো দারুণ সেভ করেছে। বাইরের ম্যাচে কতটা আত্মবিশ্বাস নিয়ে টিম নামতে পারছে, তার উপর নির্ভর করে জেতা। সেটা আমাদের ছিল।’  

    No comments