• Breaking News

    ঋদ্ধি : এমন ক্যাচ আরও নিতে চাই

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    কম কথার মানুষ। পছন্দের বিষয়ে বলতে স্বচ্ছন্দও। শিলিগুড়ির ঋদ্ধিমান সাহা ভারতীয় টেস্ট দলের মতো কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবেরও অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। তাঁর বেড়ে-ওঠা মাঠেই থাকবেন বিপক্ষের সাজঘরে, চাইবেন তাঁর শহরের দলের হার। ইডেনে আইপিএল ম্যাচের আগের বিকেলে সাংবাদিক সম্মেলনে অকপট ঋদ্ধি জানালেন, মুক্তমনে খেলাই পাঞ্জাবের সাফল্যের কারণ।
    আরও যা যা বললেন ---

    পরিচিত মাঠ ও পরিবেশ...
    ছোট থেকেই ইডেনে খেলছি। রাজ্য স্তরে, রনজি ট্রফিতে, আইপিএল-এ। যদিও ইডেন সম্পর্কে জানি প্রায় সবই, কিন্তু, মাথায় রাখছি, সবই পাল্টে যায়, নিয়মিত। এখানে ফিরেছি কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের হয়ে খেলতে। আমার লক্ষ্যও তাই পাঞ্জাবের জয়। সতীর্থরাও এ-মাঠে খেলেছে। জানে, কী কী করতে হবে।

    এ-মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্টের সেরা...
    ওটা টেস্ট ছিল। আলাদা ফর্ম্যাট, আলাদা পরিস্থিতি। অতীত নিয়ে পড়ে থাকি না। দুটো ম্যাচ জিতে খেলতে এসেছি, ভুলে গিয়ে, এই ম্যাচটাই প্রথম ভেবে খেলতে নামতে চাই। মাঠে একটাই ব্যাপার, নিজের কাজটা ঠিকঠাক করতে হবে। হ্যাঁ, দুটো ম্যাচ পরপর জেতার কথা অবচেতনে থাকবেই, যা আরও ভাল খেলতে উদ্বুদ্ধ করবে।

    শেহবাগ-ম্যাক্সওয়েল জুটি...
    ম্যাক্সওয়েল কতটা আক্রমণাত্মক, সবাই জানি। আর বীরুভাইয়ের কথা তো আর আলাদা করে বলার নেই। দুজনেই বলেছে মুক্তমনে খেলতে। ১০ বলে ২০ তুলতে হলে ঠিক যেমন মানসিকতা নিয়ে মাঠে নামতে হয়, সেভাবেই খেলতে বলে। আমাদেরও সুবিধা হয়, জানি ওরা কী চাইছে। তার প্রতিফলন আপনারা দেখেছেন দুটি ম্যাচেই। ১৫-১৬ ওভারেই জিতেছি, যা দলের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে।

    সুপারম্যান ক্যাচ...
    ঠিক সময়ে প্রতিবর্ত ক্রিয়ার কারণে ক্যাচটা পেয়েছিলাম। ভাল লেগেছিল ওদের জুটিটা ভাঙতে পেরে। অমন ক্যাচ আরও নিতে চাই!

    বাইরের ম্যাচ...
    ঘরের মাঠে খেলছি না, সেভাবেই ভাবছি। কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব, এখন আমার দল। হ্যাঁ, কেকেআর-এর হয়ে আগে খেলেছি। তাতে কী? অতীত সবসময়ই অতীত। বাইরের ম্যাচে খেলতে গেলে যেভাবে প্রস্তুতি নিয়ে থাকি, এই ম্যাচেও একইভাবে তৈরি হব।

    ক্রিস লিন...
    দুটো ম্যাচেই ভাল খেলেছিল। তারপরও যদি কোনও সেট-ব্যাটসম্যান খেলতে না-পারে, আমাদের লাভ! কিন্তু, এই ফর্ম্যাটে সব ব্যাটসম্যান ভয়ঙ্কর। ভাবতে হয় সবাইকে নিয়েই। শুধুই জেতা নিয়ে ভাবছি।

    টেস্ট সিরিজে অসিদের সঙ্গে সম্পর্কের প্রতিফলন...
    অতীতে নয়, বর্তমানে বাঁচি। আগে কী হয়েছে, মনে রাখি না, মনে নেই। ওরাও ভুলে গিয়েছে এখন, কী হয়েছিল।

    দুটো দল সম্পর্কে...
    ম্যাচের আগে দুদলের ব্যটিং-বোলিং শক্তি বিচার করে খেলতে নামি না। গত কয়েক বছর ধরে নাইট রাইডার্স ভাল খেলছে। দুবার খেতাবও জিতেছে। তবে আমরাও চেষ্টা করব, গত দুটো ম্যাচে জয়ের ধারা ধরে রাখতে।

    আন্দ্রে রাসেল নেই...
    সব দলের একটাই লক্ষ্য, বিপক্ষ যেন সফল না হয়! আত্মবিশ্বাস কম হলে তো সুবিধে! কাজে লাগাতে হবে!

    ওপরে ব্যাট করা নিয়ে...
    যা বলা হয়েছে আমাদের, যে কেউ যে কোনও জায়গায় ব্যাট করতে পারে। যদি চটপট কয়েকটা উইকেট পড়ে যায়, আগেই নামতে হতে পারে। সবই নির্ভর করবে বিপক্ষের বোলাররা কেমন বল করছে তার ওপর। প্যাটার্নটা খেয়াল করতে হবে। সবাই তৈরি আছে। ব্যাটিং অর্ডারে কোনও কিছুই নিশ্চিত নয়।

    উইকেট নিয়ে...
    দেখিনি। নিউজিল্যান্ড-এর বিরুদ্ধে যে উইকেটে টেস্ট ম্যাচ খেলেছিলাম, পেস-সহায়ক ছিল। প্রথম তিন-চার ওভারের পর বুঝতে পারব।

    No comments