• Breaking News

    মর্গ্যানের পদত্যাগ, দায়িত্বে আরমান্দো?

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    অবশেষে পদত্যাগ করতেই হল ট্রেভর জেমস মর্গ্যানকে। রবিবার ডিএসকে শিবাজিয়ান্সের কাছে ইস্টবেঙ্গলের হারের পর থেকেই কর্তাদের বিরাট চাপ ছিল। প্রাথমিকভাবে মানতে রাজি না হলেও সোমবার বুঝে যান, ইস্তফা দেওয়াই শ্রেয়। দুপুরে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব তাঁবুতে পৌঁছে যায় তাঁর পদত্যাগপত্র, যা কর্তারা সঙ্গে সঙ্গেই গ্রহণ করে নেন।

    আই লিগে এখনও দুটি ম্যাচ বাকি। সেই দুটি ম্যাচের জন্য ইস্টবেঙ্গলের তিন প্রাক্তন ফুটবলারের হাতে দল পরিচালনার ভার সাময়িকভাবে তুলে দেওয়া হয়েছে। ভাস্কর গাঙ্গুলি, মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য ও তু্ষার রক্ষিত। মঙ্গলবার সকাল থেকেই তাঁরা থাকছেন ক্লাবের অনুশীলনে। তবে, ক্লাবের অভ্যন্তরীণ সূত্রের খবর, আরমান্দো কোলাসোর সঙ্গে কথা হয়ে গিয়েছে। সম্ভবত বুধবার সকালের মধ্যেই কলকাতায় চলে আসছেন কোলাসো। দায়িত্ব নেবেন আই লিগের বাকি দুটি ম্যাচ এবং ফেডারেশন কাপের জন্যও।

    ইস্টবেঙ্গলে আগে তিন বছর কোচিং করিয়েও আই লিগ এনে দিতে পারেননি ব্রিটিশ মর্গ্যান। তবু, লালহলুদ ভক্তদের এক অংশের কাছে ‘টিজেএম স্যর’-এর জনপ্রিয়তা ছিল বিরাট। অন্য কোচদের আমলে ইস্টবেঙ্গল হারলেই ‘মর্গ্যানকে ফিরিয়ে আনা হোক’ দাবি তুলতেন তাঁরা। সেই তাঁরাই অবশ্য এখন মর্গ্যান-বিরোধী স্লোগান তুলেছেন। মোহনবাগানের কাছে হার এবং শিবাজিয়ান্সের বিরুদ্ধে ম্যাচের আগে ক্লাবতাঁবুতেই বিক্ষোভের মুখে পড়েছিলেন মর্গ্যান। তাঁর দল নির্বাচন, অস্ট্রেলীয় পেইনকে আনা ও দো দং-কে ছেড়ে দেওয়া, বারবার ব্যর্থতা সত্ত্বেও টিপি রেহনেশকে খেলিয়ে যাওয়া, জাতীয় দলের মিডফিল্ডারদের মরসুম জুড়ে বসিয়ে রেখে আত্মবিশ্বাস নষ্ট করে দেওয়া, ইত্যাদি নানা কারণে গোপন থাকেনি ১৪ বছর আই লিগ না-পাওয়ার যন্ত্রণা থেকে উদ্ভূত ক্ষোভ। থুথুও ছেটানো হয়েছিল। হয়ত তখনই আঁচ করে ফেলেছিলেন ভবিষ্যৎ।

    তাই, শিবাজিয়ান্সের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে হারসহ, আই লিগে টানা চার ম্যাচে হারের লজ্জা নিয়েই সরে যেতে হল সাহেব-কোচকে।

    No comments