• Breaking News

    আলভেস বনাম নেইমার, ইউরোপে আজ ব্রাজিলীয়-যুদ্ধ!

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    বাঁদিক দিয়ে নেইমার উঠবেন যখন, আটকাতে ছুটবেন দানি আলভেস। দুজনেরই স্বভাব আছে সূক্ষ্মতম ছোঁয়ায় মাটিতে পড়ে যাওয়ার। দুজনেই ব্রাজিলীয়। দুজনেই গত বছরও বার্সেলোনায় সতীর্থ ছিলেন। আজ মাঠে সম্মুখসমরে।

    ৮ ম্যাচে এি মরসুমের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বার্সেলোনার গোল ২৬। জুভেন্তাস গোল খেয়েছে মাত্র দুটি, ওই ৮ ম্যাচেই। লড়াই তাই বার্সেলোনার আক্রমণ বনাম জুভেন্তাসের রক্ষণ। মেসি-সুয়ারেজ-নেইমার বনাম বোনুচ্চি-কিয়েলিনি-সান্দ্রো। আর বার্সেলোনা ত্রয়ীকে পেরিয়ে আসতে হবে মাঝমাঠে মার্চিসিও-খেদিরার প্রাথমিক বাধাও।

    জুভেন্তাস ঘরের মাঠে খেলবে কোয়র্টার ফাইনালের প্রথম পর্ব। ২০১৫-র অগাস্ট মাসের পর যারা ঘরের মাঠে হারেনি। টানা ২১ ইউরোপীয় ম্যাচে তারা অপরাজিত থেকেছে তুরিনে, সিরি আ-তে তো শেষ ৩২২ ম্যাচ জিতেছে। ইতালির লিগে টানা ষষ্ঠ খেতাবের পথে মাসিমিলিয়ানো আলেগ্রির দল।

    বার্সেলোনা এবার অ্যাওয়ে ম্যাচে তো বটেই, ঘরের মাঠেও হেরেছে মাঝেমাঝেই। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সবচেয়ে বেশি গোল করার পাশাপাশি গোল খেয়েছে ৯টি, যার মধ্যে শুধু পিএসজি-র কাছেই হারতে হয়েছিল ০-৪। হ্যাঁ, ঘরের মাঠে ইউরোপের ইতিহাসের সেরা প্রত্যাবর্তন দেখিয়েছিলেন মেসিরা, ৬-১ জিতে। কিন্তু, তারপরও তো বহু ম্যাচ চলে গিয়েছে। শেষ ম্যাচে মালাগার কাছে হারতে হয়েছে ০-২, যার ফলে লা লিগা-র খেতাবি দৌড় থেকে ছিটকেই গিয়েছেন প্রায় মেসিরা।

    সেমিফাইনালে যাওয়ার লড়াই ইউরোপে ১৮০ মিনিটের। প্রথম ৯০ মিনিট আজ রাতে। সাম্প্রতিক ফর্মের ভিত্তিতে যেখানে নিশ্চিতভাবেই এগিয়ে থেকে শুরু করবেন বুফোঁ-ইগাইনরা। আর্জেন্তিনাকে তিনটি ফাইনালে ট্রফি জিততে দেননি ইগাইন, সত্যি। কিন্তু জুভেন্তাসের হয়ে তাঁর পা কথা বলছে। নিয়মিত গোল করছেন। দুর্দান্ত সমর্থন পাচ্ছেন কুয়াদ্রাদো ও আলভেসের থেকে। ঠিক পেছনে দাইবালা, ভবিষ্যতের মেসি বলা হচ্ছে যাঁকে।

    এই দলের বিরুদ্ধেও কি তিন ব্যাকেই খেলবেন লুইস এনরিকে? সাধারণত মাসচেরানো-পিকে-উমতিতি থাকেন তাঁর রক্ষণে। দুই সাইডব্যাক রোবের্তো ও আলবার বেশি মনোযোগ আক্রমণে। মাঝমাঠে বুসকেতস প্রয়োজনে সাহায্যে নেমে আসবেন তিন ব্যাকের কাছে। ইনিয়েস্তা আর রাকিতিচেরও প্রধান কাজ আক্রমণ।

    দুই গোলরক্ষকের লড়াইতে বুফোঁর ধারেকাছে নেই টের স্টেজেন।

    ঘরের মাঠে তাই জুভেন্তাসই এগিয়ে, যতই তারা দুবছরে আগে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে ১-৩ হেরে যান না কেন!

    বার্সেলোনার সুবিধা হতে পারে অ্যাওয়ে গোল পেলে। পাবেন কি মেসিরা?

    জুভেন্তাস রক্ষণ কিন্তু মোটেও পিএসজি-র মতো নয়, অনেক বেশি শক্তিশালী ও দু্র্ভেদ্য।

    না হারলে খুশিই হবেন এনরিকে। তবে, ১-২ নিয়ে ফিরতে পারলেও অখুশি হবেন না বোধহয়!

    No comments