• Breaking News

    আর্জেন্তিনার কোচ হতে আগ্রহী মারাদোনা, বিলকুল ‘ফ্রি’!

    কাশীনাথ ভট্টাচার্য

    maradona coach

    আবার আর্জেন্তিনার কোচ হতে চেয়েছেন দিয়েগো মারাদোনা। এবার তো বিলকুল ‘ফ্রি’ - বিনেপয়সায়!

    বলেছেন, ‘অনেকেই বলেন আমি নাকি দামী কোচ। তা হলে কী বলবেন মোরিনিও সম্পর্কে? কিংবা আনসেলোত্তি, সিমিওনে? ওদের তুলনায় আমি কত বেশি পয়সা চাই, নিজেই জানি না! তবে, জাতীয় দলকে বিনা পয়সায় কোচিং করাতে কোনও আপত্তি নেই, জানিয়ে রাখলাম।’

    কোপা ফাইনালে টানা দ্বিতীয় হারের পর আর অলিম্পিক্সের আগে দল নিয়ে টালবাহানায় পদত্যাগ করেছিলেন তাতা মার্তিনো। ঠিক হয়েছে, রিও অলিম্পিক্সে আর্জেন্তিনার দায়িত্বে থাকবেন খুলিও ওলার্তিকোয়েচিয়া। তারপরই বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব শুরু হবে। সঙ্গে আবার মেসির অনুপস্থিতি। অবসরই নিয়ে ফেলেছেন জাতীয় দল থেকে। আর্জেন্তিনার চাই নতুন অধিনায়ক ও কোচ। মারাদোনা এই সুযোগে নিজের কোচিং-কেরিয়ার পুনরুদ্ধারে আগ্রহী হয়ে নেমে পড়েছেন।

    দুবাইতে আল ওয়াসল ক্লাবে ছিলেন বছরখানেক। বেশি দিন তাঁকে রাখার সাহস দেখাতে পারেনি দুবাইও! আর্জেন্তিনার কোচ ছিলেন বছর দুই। দায়িত্ব পাওয়ার পর দ্বিতীয় ম্যাচে আর্জেন্তিনা হেরেছিল ১-৬, বলিভিয়ার কাছে! পরিকল্পনা বলতে কিছুই ছিল না। লা পাজ, যেখানকার উচ্চতা ৩৬০০ মিটার এবং যেখানে খেলতে গেলে অন্যরকম পরিকল্পনা জরুরি, সবচেয়ে বেশি জরুরি ওই উচ্চতার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার জন্য ওখানে কয়েক দিন আগে গিয়ে আবহাওয়ার সঙ্গে দোস্তি বাড়ানো, মারাদোনা সেখানে দল নিয়ে পৌঁছেছিলেন খেলার দু’ঘন্টা আগে! আর ভোকাল টনিক দিয়ে তাতানোর চেষ্টা করেছিলেন এই বলে যে, ‘উচ্চতা নয়, তোমাদের সামনে তো বলিভিয়া, এত ভাবনার আছেটা কী!’

    আর্জেন্তিনার ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপ হারগুলির অন্যতম সেই বলিভিয়া ম্যাচ। চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে গিয়েছিল কোচ হিসাবে মারাদোনার ব্যর্থতা। বিশ্বকাপে কোনওরকমে বাছাইপর্ব পেরিয়েছিল আর্জেন্তিনা আর মারাদোনা বৃষ্টিস্নাত মাঠের কাদায় গড়াগড়ি খেয়েছিলেন, মোরিনিও-ঢঙে। তারপর, দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপের জন্য আর্জেন্তিনা দল বেছে নিয়েছিলেন যখন, নির্বাচিত সেই ২৩ জনে ছিলেন না কোনও রাইট ব্যাক! আর্জেন্তিনার সেই ডান দিক দিয়ে মুলার-ক্লোজেরা চার গোল দিয়ে বিদায় জানিয়েছিল আর্জেন্তিনাকে। দেশের ফুটবল ইতিহাসের আরও একটি লজ্জাজনক হার। চাকরি থাকেনি মারাদোনার। থাকা সম্ভব ছিল কি?

    আর্জেন্তিনীয় ফুটবল সংস্থা কি এবার আবার ডাকবে মারাদোনাকে? ১৯৮৬ বিশ্বকাপের তারকা নিজেই বলেছেন, ‘কোচিং কেরিয়ারটা নতুন করে শুরু করতে চাই। জাতীয় দল দিয়ে সেই শুরুটা হলেই ভাল। পয়সাটা আমার কাছে কোনও ব্যাপারই নয়। ফুটবলারদের সঙ্গে থাকাটা মিস করছি। আর মিস করছি সাংবাদিকদের সঙ্গে আমার ঝগড়ার দিনগুলো!’ হ্যাঁ, আগেরবার কোচ ছিলেন যখন, সাংবাদিকদের তেড়ে গাল পেড়েছিলেন ‘লাইভ টিভি’-তে। সেই নিয়েও প্রচুর বিতর্ক এবং যথারীতি শেষে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছিলেন মারাদোনা, দেশের সব মহিলার কাছে, অমন আচরণের জন্য।

    কেমন কোচ মারাদোনা? খুয়ান রিকেলমে সরে গিয়েছিলেন জাতীয় দল থেকে। বলে দিয়েছিলেন, যত দিন মারাদোনা দায়িত্বে থাকবেন, জাতীয় দলে খেলবেন না। খেলেনওনি। ভেরন ছিলেন আরও চাঁচাছোলা, ‘মারাদোনা কোচ থাকলে বিপক্ষে কারও থাকার দরকারটাই বা কী!’ আর, ২০১০ বিশ্বকাপে জার্মানির কাছে পর্যুদস্ত হওয়ার দিন আর্জেন্তিনার কাগজ লিখেছিল, ‘দলে সবচেয়ে বেশি জরুরি ছিল একজন সত্যিকারের কোচের উপস্থিতি!’

    যে-ফুটবলারদের সঙ্গে থাকবেন বলে কোচিংয়ে ফিরতে চাইছেন বলে জানিয়েছেন মারাদোনা, সেই ফুটবলাররা কিন্তু সবাই জানেন, শতবার্ষিকী কোপা চলাকালীন তিনি ঠিক কী কী কথা বলেছিলেন তাঁদের সম্পর্কে।

    আন্তর্জাতিক ফুটবল বাজারে উড়ো খবর, মেসিকে অবসর ও অভিমান ভাঙিয়ে ফিরিয়ে আনার জন্যই নাকি মারাদোনার দিকে ঝুঁকতে পারে আর্জেন্তিনীয় ফুটবল সংস্থা। ২০১৪ বিশ্বকাপ শেষে আর ২০১৫ ও ২০১৬ কোপার সময় মেসি সম্পর্কে যা যা বলেছিলেন মারাদোনা, তারপরও?

    No comments