• Breaking News

    ২১ মাসের হাজতবাস মেসির, স্পেনের আদালতের নির্দেশ

    দু’বছরের কম শাস্তি হলে, হাজতে না-গেলেও চলবে, নিয়ম স্পেনের আদালতের।


    আর রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে যাওয়ার রাস্তা খোলাই


    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক

    messi court

    যেন মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা! দিন দশও হয়নি, কোপা ফাইনালে চিলের কাছে হেরে আন্তর্জাতিক আসরকে বিদায় জানিয়েছিলেন লিওনেল মেসি। এবার, স্পেনের আদালত তাঁকে পাঠাল হাজতে!

    ২১ মাস হাজতে কাটাতে হবে লিওনেল মেসিকে। সঙ্গে তাঁর বাবা হোর্খে-কেও। কর ফাঁকি দেওয়ার কারণে। দুজনের ক্ষেত্রে জরিমানা ধার্য হয়েছে যথাক্রমে ২০ ও ১৫ লক্ষ ইউরো। তবে, স্পেনের আদালতেরই নিয়ম আছে, দু’বছরের কম সময়ের জন্য হাজতবাসের নির্দেশ পেলে সেই শাস্তি জেলের বাইরেও কাটানো সম্ভব। তাই মেসি ও তাঁর বাবা জেলে যাচ্ছেন না, নিশ্চিত। কিন্তু আদালতের এই নির্দেশের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে আবেদন জানাতে পারবেন, নিশ্চিত।

    প্রসঙ্গত, ফেব্রুয়ারিতেই মেসির বার্সেলোনা ও আর্জেন্তিনা সতীর্থ হাভিয়ের মাসচেরানোর ক্ষেত্রেও একই আদালতের নির্দেশ ছিল, এক বছরের জেল ও ২ লক্ষ ৮০ হাজার ইউরো জরিমানা। মাসচেরানোর আইনজীবীরা সেই জরিমানা বড্ড বেশি বলে দিতে অস্বীকার করে পুনরায় আদালতে গিয়েছেন।

    মেসিদের বিরুদ্ধে প্রধান অভিযোগ ছিল, নানা ছদ্ম কোম্পানির সাহায্যে নিজেদের করের পরিমাণ কমিয়ে দেখানো ও কর ফাঁকি দেওয়ার। ২০১৩ সাল যখন প্রথম এই অভিযোগ এসেছিল, মেসিরা নাকি প্রায় ৫০ লক্ষ ইউরো জমা দিয়েছিলেন প্রথমে। পরে আরও ১ কোটি ইউরো দেন কর হিসাবে, ২০১০-১১ আর্থিক বছরের জন্য। পুরোটাই ইমেজ রাইটস থেকে প্রাপ্ত অর্থের কারণে, কর হিসাবে। ধরে নেওয়া হয়েছিল যে, সমস্যা মিটে গিয়েছে। কিন্তু, আবারও আদালতে কেস ওঠে। এবার ২০০৭ থেকে ২০০৯ সালের জন্য, একই কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগে।

    শতবার্ষিকী কোপায় খেলতে যাওয়ার আগে মেসিকে টেনে আনা হয় আর্জেন্তিনা থেকে স্পেনে, আদালতে হাজিরা দিতে। যেখানে মেসি বলে দিয়েছিলেন, কর দেওয়া বা না দেওয়ার ব্যাপারে তিনি কিছুই জানতেন না। মাঠের বাইরের সব ব্যাপারই তাঁর বাবা দেখতেন। প্রাথমিকভাবে আদালত তাঁর কথা বিশ্বাস করেছিল। কিন্তু সব পাল্টে যায় রাষ্ট্রের আইনজীবী মারিও মাজার কথায় যিনি সওয়াল করতে গিয়ে বলেছিলেন, ‘মেসির কথার বিশ্বাসযোগ্যতাই নেই। বিরাট অপরাধী চক্রের পাণ্ডার মতো কথা বলেছেন মেসি। দশ বছরের একটা বাচ্চাও জানে যে, স্পেনে কর দিতেই হয়, ওঁকেও দিতে হবে।’

    এফসি বার্সেলোনা অবশ্য এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সরাসরি জানিয়ে দিয়েছে, তাঁরা পাশে আছেন মেসি ও তাঁর বাবার। মেসিরা যে কোনও রকম শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেননি, তাঁরা নিশ্চিত। তাই মেসিদের পরবর্তী যে কোনও পদক্ষেপেই এফসি বার্সেলোনা সবরকমের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে, জানিয়েছে ক্লাব।

    No comments