• Breaking News

    চলে গেলেন হকির ট্র্যাজিক নায়ক মহম্মদ শাহিদ

    38ac2406-4d83-4392-a025-6e259376d6eaরাইট স্পোর্টস ডেস্ক
    শেষ পর্যন্ত হেরেই গেলেন মহম্মদ শাহিদ। কিডনির রোগে আক্রান্ত হয়ে ২৯ জুন ভর্তি হয়েছিলেন গুরগাঁওয়ের হাসপাতালে। বুধবার সকালে ৫৬ বছরেই থেমে গেল ভারতীয় হকি দলের প্রাক্তন অধিনায়ক শাহিদের যাবতীয় লড়াই। রেখে গেলেন স্ত্রী পরভিন, ছেলে সইফ, মেয়ে হিনাকে।
    ১৯৭৯ সালে জুনিয়র বিশ্বকাপে প্রথম চোখে পড়েন শাহিদ। বেনারস থেকে উঠে আসা রোগা পাতলা ওই ছেলেটিই পরে ভারতীয় হকিকে মাতিয়ে দিয়েছিলেন, তাঁর অবিশ্বাস্য ড্রিবল দিয়ে। অনেকেই তাঁর সঙ্গে হকির জাদুকর ধ্যানচাঁদের হকি স্কিলের তুলনা করতেন। শাহিদের মৃত্যুতে শোকের ছায়া হকিমহলে।
    ১৯৮০ সালে মস্কো অলিম্পিকে ভারতীয় টিমের সদস্য ছিলেন। সে বারই শেষ বার অলিম্পিকে সোনা জেতে ভারতীয় টিম। ওই টিমে ফরোয়ার্ডে জাফর ইকবালের সঙ্গী ছিলেন শাহিদ। ভারতের সোনা জেতার পিছনে যথেষ্ট অবদান ছিল বেনারসের প্লেয়ারেরও। ১৯৮২ সালে দিল্লি এশিয়ান গেমসে রুপোজয়ী টিমের সদস্য। পরের বার ১৯৮৬ সালের এশিয়ান গেমসেও ব্রোঞ্জজয়ী টিমে ছিলেন। ১৯৮১ সালে অর্জুন পুরস্কার পান। ১৯৮৬ সালে পান পদ্মশ্রী। ১৯৮৫-৮৬ সালে ভারতীয় হকি টিমের ক্যাপ্টেনও ছিলেন মহম্মদ শাহিদ।
    শাহিদের অন্যতম বন্ধু জাফর ইকবাল বলেছেন, ‘এক সঙ্গে সাতটা বছর আমরা খেলেছি। আমার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ বন্ধু। এ ভাবে চলে যাবে, ভাবিনি।’ রিও অলিম্পিকে ভারতীয় টিমের ক্যাপ্টেন এস শ্রীজেশ কয়েক দিন আগে গুরগাঁওয়ের হাসপাতালে গিয়ে দেখে এসেছেন শাহিদকে। তাঁর মৃত্যুর খবরে শ্রীজেশও শোকাহত। বলেছেন, ‘হকির কিংবদন্তি চলে গেলেন। যখন ওঁকে দেখতে গিয়েছিলাম, পরিস্থিতি জটিল ছিল। কিন্তু এত তাড়াতাড়ি যে সব শেষ হয়ে যাবে, ভাবিনি।’

    1 comment:

    1. Its a great lost to Indian and world hockey

      ReplyDelete