• Breaking News

    উইম্বলডনে সেমিফাইনালেই এবার বিদায় ফেডেরারের

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক

    federer lost

    রজার ফেডেরার এবারও পারলেন না। বিদায় নিতে হল উইম্বলডন সেমিফাইনালে। ৬-৩, ৬-৭, ৪-৬, ৭-৫, ৬-৩ গেমে হারলেন কানাডার ষষ্ঠ বাছাই মিলোস রাওনিচের কাছে। সেন্টার কোর্টে সেমিফাইনালে একাদশবারে ফেডেরারের প্রথম হার।

    ৩৪ বনাম ২৫-এর লড়াইয়ে পঞ্চম সেটে ফেডেরারকে হারতে হল তারুণ্যের কাছে। আগের রাউন্ডেই পঞ্চম সেটে মারিইন চিলিচকে হারিয়ে আদায় করেছিলেন সেমিফাইনালের ছাড়পত্র। সেমিফাইনালে ১০-০ রেকর্ড, সেন্টার কোর্টের সস্নেহ ও সরব সমর্থন সঙ্গে নিয়ে কানাডার রাওনিচের কাছে প্রতম সেট হেরে যাওয়ার পরও, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় সেট যেভাবে জিতে নিয়েছিলেন সুইস তারকা, মনে হচ্ছিল আবারও ফাইনালে ওঠা বোধহয় শুধুই সময়ের অপেক্ষা। কিন্তু, চতুর্থ সেটে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে পদস্খলন!

    পঞ্চম এবং নবম গেমে দু’বার ব্রেক পয়েন্ট বাঁচিয়ে নিজেকেও টিকিয়ে রেখেছিলেন জন ম্যাকেনরোর শিষ্য রাওনিচ। হাঁটুর চোট ফিরে আসে ফেডেরারের। আর নিজেই সার্ভিস হারিয়ে চতুর্থ সেট তুলে দেন তরুণ রাওনিচকে। ম্যাচের ভাগ্য বোধহয় ওখানেই ঠিক হয়ে যায়। রাওনিচের ২৩ এস-এর জবাবে ফেডেরারের ১৬। টানা দুটি পাঁচ সেটের ম্যাচ চৌত্রিশের ফেডেরারের পক্ষে জেতা কি আর সম্ভব এখন?

    সেন্টার কোর্ট অবশ্য তাঁদের প্রিয় তারকাকেই দেখতে চেয়েছিল রবিবার ফাইনালে। তাই সমর্থন ছিল ফেডেরারের প্রতি। সাতবারের চ্যাম্পিয়ন উইম্বলডনে অষ্টম খেতাবের লক্ষ্যে পৌঁছবেন, চাইবেন ১৮তম গ্র্যান্ড স্লাম জিততে, এই আশায় ভরসা ছিল নোভাক জকোভিচের হার। ফেডেরারের প্রিয় ঘাসের কোর্টে জোকার ছাড়া আর কেউ তাঁকে হারিয়ে দেবেন, ফেডেরারও বোধহয় ভাবেননি!

    কিন্তু, সেরাদেরও শ্রেষ্ঠ সময় পেছনে চলে যায় যখন, সন্তুষ্ট থাকতে হয় সেমিফাইনাল নিয়েই। অবিশ্বাস্য মনে হলেও সত্যি, হেরে ফেডেরার জানিয়েছেন, ‘খারাপ লাগছে ভেবে কারণ, ম্যাচটা জেতার মতো জায়গায় পৌঁছে গিয়েছিলাম। খুব, খুব কাছেই ছিলাম হয়ত। কিন্তু, সেমিফাইনালে পৌঁছনও এবার বিরাট কৃতিত্ব।’

    ১৭ গ্র্যান্ড স্লামের মালিক অবশ্য বিদায় নেওয়ার আগে জানিয়ে যেতে ভোলেননি, ‘আবার আসব, সামনের বছর। খেলতেই!’

    No comments