• Breaking News

    ‘গ্রিস’ হয়েই সেমিফাইনালে পর্তুগাল!

    কাশীনাথ ভট্টাচার্য

    ron-ren

    ‘গ্রিস’ হয়েই এগোচ্ছে পর্তুগাল!

    যাদের বিরুদ্ধে ইউরো ফাইনালে এক যুগ আগে হারের ঘা এখনও দগদগে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর মনে, ২০১৬ ইউরোয় পর্তুগালের প্রতিটি ম্যাচে যেন বারবার বেরিয়ে আসছে সেই সত্য, পর্তুগাল এবার ‘গ্রিস’ হতে হতেই সেমিফাইনালে!

    দক্ষিণ ইউরোপের আইবেরীয় উপদ্বীপের পর্তুগাল, ইউসেবিও-ফিগোর পর্তুগাল হেরে গেলেও কখনও এমন ফুটবল খেলতে চায়নি যা মাঝমাঠে আবদ্ধ রেখে মেরে ফেলতে চায় খেলার আকর্ষণ। বল-পায়ে পর্তুগিজদের দেখা মানে আনন্দ। এই তো যেমন আঠেরর রেনাতো সানচেজ। দুপায়ে শট, বল নিয়ন্ত্রণ ভাল, চাপে ভেঙে পড়ছেন না, রোনালদোর দলে আক্রমণে ধার যোগ করছেন আনসেলোত্তির বায়ার্ন মিউনিখে সদ্য সই-করা তারকা।

    কিন্তু, এই অ্যাডভেঞ্চার-প্রিয় মনোভাবের পাশাপাশি পর্তুগালকে যা শিখিয়েছেন ফেরনান্দো সানতোস, প্রয়োজনে মাটি কামড়ে পড়ে থাকা, দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই। এই প্রতিযোগিতাতেই চারবার পিছিয়ে পড়েও সমতা ফিরিয়েছেন রোনালদোরা। এক হাঙ্গেরি ম্যাচেই তিনবার। তারপর, লেওয়ানডোস্কির এই ১০০ সেকেন্ডের গোল, ইউরোর ইতিহাসে যা দ্বিতীয় দ্রুততম। অত তাড়াতাড়ি গোল পেয়ে গেলে যা হয়, পোল্যান্ড জয় নিশ্চিত করতে আরও একটি গোল চেয়েছিল। তবু, রক্ষণ কমজোরি করে নয়, যা তাদের বৈশিষ্ট্য ছিল এই প্রতিযোগিতায়। আটকে রাখা যায়নি আঠেরর তরুণকে, গোলটা শোধ করে পর্তুগাল, রেনাতোর শট পোলিশ ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে দিক পরিবর্তন করে ফাবিয়ানস্কিকে পরাস্ত করায়।

    ম্যাচটা হল তো তারপর! কেউ গোল খাবে না, একে অপরকে কাটাকুটি করে দেওয়ার লক্ষ্যে মেতে। এমনই সেই কাটাকুটির হতাশা যে, রোনালদো তিন-তিনবার সহজ সুযোগ পেয়েও গোল করতে পারলেন না। বিশেষ করে নির্ধারিত সময়ে ম্যাচ শেষ হওয়ার আগে। অফসাইড ট্র্যাপ পেরিয়ে চলে এসেছেন, সামনে একা ফাবিয়ানস্কি, বলটা আস্তে উঁচু হয়ে পড়ছে তাঁর পায়ে, কেউ কোত্থাও নেই আশেপাশে, রোনালদো সেই বলে বাঁ পা চালালেন একটু আগে, তাড়াহুড়োয়। অবিশ্বাস্য মিস বললেও কম!

    পর্তুগাল একটি পেনাল্টি পেতে পারত যখন রোনালদোকে বক্সে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়া হয়। কিন্তু, বলের অবস্থান, অর্থাৎ বল কোনওভাবেই নিয়ন্ত্রণে ছিল না রোনালদোর, নিশ্চিত গোলের সম্ভাবনার কাছাকাছি নেই, এই যুক্তিতে রেফারি দেননি সম্ভবত। অন্য কোনও দিন, অন্য কোনও রেফারি অন্যরকম ভাবতেই পারতেন।

    পরপর দু-ম্যাচে টাইব্রেকার। এবার পোল্যান্ডের হৃদয় ভাঙলেন ব্লাসজিকোস্কি। চতুর্থ শটে গোল করতে পারেননি, আটকে দিয়েছিলেন পাত্রিসিও। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে আতলেতিকো মাদ্রিদের বিরুদ্ধে রোনালদো নিয়েছিলেন শেষ পেনাল্টি। এবার নিলেন প্রথম। গোলও করলেন। বার্তা দিলেন নাকি মেসিকে যে, আমি কিন্তু প্রথম পেনাল্টি থেকেও গোল করতে পারি!

    No comments