• Breaking News

    ডাহা মিথ্যে অভিযোগের বিরুদ্ধে টুইটারে সরব লিয়েন্ডার

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক

    [caption id="attachment_1123" align="alignleft" width="300"]টুইটারে লিয়েন্ডারের বক্তব্যের স্ক্রিনশট টুইটারে লিয়েন্ডারের বক্তব্যের স্ক্রিনশট[/caption]

    টুইটারে বিস্ফোরক লিয়েন্ডার পেজ। সরাসরি আক্রমণ করলেন ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এবং বিশেষ এক সাংবাদিককে। ভিত্তিহীন অভিযোগের বিরুদ্ধে।

    ভারতীয় মিডিয়ার একাংশে বলা হয়েছিল, লিয়েন্ডার নাকি রিও-তে থাকা ভারতীয় প্রতিনিধিদের জানাননি, কবে আসছেন। সেই বিশেষ সাংবাদিক বারবার এই খবর প্রচারও করেছিলেন। তাই তাঁকে সরাসরি উদ্দেশ্য করে টুইটারে লিখলেন লিয়েন্ডার, ‘হতাশ হয়েছি, দুঃখও পেয়েছি একশ্রেণীর মিডিয়ার প্রচারে যে, রিওতে কবে পৌঁছব তা নাকি টেনিস দলকে জানাইনি। এমনও বলা হয়েছে যে, আমার ডবলস সঙ্গী বোপান্নার সঙ্গে নাকি আমি এক ঘরে থাকতে চাইনি। ডাহা মিথ্যে এবং এইভাবে খবর প্রচারের একটাই উদ্দেশ্য, আমাদের প্রস্তুতিতে ব্যাঘাত ঘটানো। গেমস ভিলেজেই আছি, শুরু থেকে যেমন পরিকল্পনা করা হয়েছিল। আশা করি আমার এই কথার পর যেভাবে খবরের গল্প বোনা শুরু হয়েছে, শেষ হবে। আমি এবং ভারতীয় টেনিস দলের বাকি সদস্যরাও নিশ্চিন্তে মনঃসংযোগ করতে পারবে অলিম্পিকে দেশের হয়ে নিজেদের সেরাটা দেওয়ার জন্য।’

    ভারতীয় মিডিয়ায় লিয়েন্ডারকে কেন্দ্র করে এই অপপ্রচারগুলো অবশ্য বহুদিন ধরেই চলছে, চলবেও। লন্ডন অলিম্পিকের সময়ও আলাদা করে ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে এগুলো করা হয়েছিল। মহেশ ভূপতি এবং রোহন বোপান্নার কেউই খেলতে চাননি লিয়েন্ডারের সঙ্গে। সানিয়া মির্জারও অনীহা ছিল চূড়ান্ত। এবারও বোপান্না পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছিলেন নিজের পছন্দ এবং খুব স্বাভাবিকভাবেই সেখানে লিয়েন্ডারের নাম ছিল না। ভারতীয় টেনিস সংস্থা জোর করেই বোপান্নাকে খেলতে বাধ্য করেছে লিয়েন্ডারের সঙ্গে।

    ঠিক এই কারণেই কিছু সংবাদমাধ্যমে নিয়ম করেই কুৎসা রটানো হচ্ছে। লিয়েন্ডার-বোপান্না জুটির কাছে এমনিতেও বিশেষ আশা নেই কারও, কারণ দুজনের সদ্ভাব যে নেই, পরিষ্কার। আজ সন্ধেতেই পোলিশ জুটি লুকাস কুবোট ও মার্টিন মাটকোওস্কি জুটির বিরুদ্ধে খেলা লিয়েন্ডার-বোপান্নার। অত্যন্ত সুকৌশলে তাই ম্যাচের আগের দিন থেকেই প্রচার চলছে, লিয়েন্ডারের অপছন্দ নিয়ে!

    এত করেও যদি আটলান্টা অলিম্পিকের সিঙ্গলসে ব্রোঞ্জ পদকের কথা ভুলিয়ে দেওয়া যেত ভারতীয়দের!

    No comments