• Breaking News

    রিওতে সবচেয়ে কম বয়সে নেপালের গৌরিকা সিং

    ভূমিকম্প থেকে অলিম্পিকে নেপালের জলপরী


    [caption id="attachment_1009" align="alignright" width="300"]নেপালের জলপরী গৌরিকা সিং। ছবি— ফেসবুক থেকে নেপালের জলপরী গৌরিকা সিং। ছবি— ফেসবুক থেকে[/caption]

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক
    চোখের সামনে সারা দুনিয়া তছনছ হয়ে যেতে দেখছে বারো বছরের কিশোরী। ভূমিকম্পে ভেঙে পড়ছে বড় বড় বাড়ি। ধস নামছে পাহাড়ে। যেন হিমালয়ের কোলে সুন্দর দেশটাই হারিয়ে যাবে।
    ভয় পেয়ে যাওয়া ওই কিশোরীর বারবার মনে হচ্ছিল, কেন যে এসেছে নেপালে! মনে হয়েছিল, জীবনটা বোধহয় আর এগোবে না। ওই ধ্বংসলীলাতেই শেষে যাবে সে, তাঁর মা ও ভাই।
    সেই কিশোরীর বয়স এখন ১৩। সেই কিশোরীই রিও অলিম্পিকের সবচেয়ে কম বয়সী অ্যাথলিট। নেপালের ভূমিকম্প থেকে রিওতে পৌঁছনো কিশোরীর নাম গৌরিকা সিং।
    ১৩ বছরের গৌরিকা সাঁতারু। ১০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকে নেপালের সাতটা জাতীয় রেকর্ড ইতিমধ্যেই ভেঙে ফেলেছে সে। যে ভাবে এগোচ্ছে, রিওতে পদক না এলেও আগামী দিনে তাকে ঘিরে স্বপ্ন দেখাই যায়। রবিবার হিটে নামছে গৌরিকা।
    ২ বছর বয়সে নেপাল থেকে ইংল্যান্ড চলে যান গৌরিকার বাবা পারস। হার্টফোর্ডশায়ারের স্কুলে বড় হওয়া গৌরিকা সুইমার হতে চেয়েছিল। বাবা আটকাননি। গত বছর নেপালের জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে পা দিতে এসেই বিপত্তি। সে দিন কাঠমান্ডুতে কী ঘটেছিল? গৌরিকার কথায়, ‘ভূমিকম্পের সময় একটা পাঁচতলা বাড়িতে ছিলাম। বাড়িটা হঠাৎ কাঁপতে শুরু করে। আমি মা আর ভাইয়ের সঙ্গে একটা টেবিলের তলায় ১০ মিনিট মাথা নিচু করে বসেছিলাম। ভূমিকম্প একটু কমতেই আমরা নীচে দৌড়ে যাই। কপাল খুব ভালো যে বাড়িটা নতুন ছিল।’
    কাঠমান্ডুর সে ঘটনা এখন আতঙ্কের মতো বসে আছে গৌরিকার মনে। তবে রিওর স্বপ্ন তাকে এগিয়ে দিয়েছে অনেকটা। গৌরিকার বাবা পারসের কথায়, ‘ও এ বারের অলিম্পিকে সবচেয়ে কম বয়সী প্রতিযোগী। আমাদের কাছে যা বিরাট। একই সঙ্গে এটাও ঘটনা যে, কতটা পরিশ্রম করে এই জায়গায় পৌঁছেছে, আমরাই জানি।’

    No comments