• Breaking News

    ডাফির হ্যাটট্রিক, লিগের ইতিহাসে নৈশালোকে প্রথম ম্যাচে দাপট মোহনবাগানের

    মোহনবাগান ৫ এরিয়ান ১
    (প্রবীর ১৪, ডাফি ৬২, ৬৬, ৭৩, আজহার ৭৭) (কাজিম ৮৯)


    Captureরাইট স্পোর্টস ডেস্ক
    কলকাতা লিগের ইতিহাসে নৈশালোকে প্রথম ম্যাচ খেলল মোহনবাগান। আর নিজেদের মাঠে অপ্রতিরোধ্য সবুজ-মেরুন। জিতেছিল অন্য দুই প্রধানও। কিন্তু প্রথম ম্যাচে মোহনবাগানের দাপট অনেক বেশি, যার পরিষ্কার প্রতিফলন গোল-সংখ্যায়।
    স্কটিশ ড্যারিল ডাফি অবশ্য এই দাপটের উৎস। হ্যাটট্রিক করলেন নিজের প্রথম ম্যাচে। দ্বিতীয়ার্ধে ৬২ থেকে ৭৩ - ১১ মিনিটের মধ্যে তাঁর হ্যাটট্রিক স্বস্তি দিল সবুজ মেরুন সমর্থকদের। আর, ঔজ্জ্বল্য বাড়িয়ে দিল রাতের আলোয় মোহনবাগান মাঠের।
    তিনটি গোল তিন রকম। ফ্রি কিক থেকে নিচু শটে, এরিয়ান গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে। সুযোগসন্ধানী ফরোয়ার্ডের মতো প্রবীরের দুর্দান্ত পাস ধরে দ্বিতীয় গোল এবং আবারও প্রবীরেরই সেন্টারে মাথা ছুঁইয়ে বলের দিক সম্পূর্ণ পাল্টে দিয়ে হ্যাটট্রিক। কলকাতা লিগের প্রথম ম্যাচে মোহনবাগানের হয়ে শেষবার হ্যাটট্রিক করেছিলেন ওডাফা ওকোলি। ডাফি ছুঁয়ে ফেললেন ওডাফাকে।
    এরিয়ান সাম্প্রতিক অতীতে রঘু নন্দীর প্রশিক্ষণে নাম করেছিল বড় দলের থেকে পয়েন্ট কাড়ার জন্য। এবার রঘু সরাসরি নেই। তাঁর ছেলে কোচ এরিয়ানের। কিন্তু নিজেদের মাঠে মোহনবাগান কোনো সুযোগই দিল না তাদের, ম্যাচে ফেরার। প্রথমার্ধ শেষে মাত্র এক গোলের ব্যবধান এবং বল-পজেশন সমান-সমান থাকলেও ডাফির প্রথম গোলের পর থেকেই ভেঙে গেল যাবতীয় প্রতিরোধ। শেষে আজহারও পেলেন নিজের প্রথম ও দলের পঞ্চম গোল। হঠাৎ ইনসাইড ডজ করে ভেতরে এসে আগুয়ান এরিয়ান গোলরক্ষকের কাছের পোস্টে বল রাখলেন অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে।
    শেষে এরিয়ান একটি সান্ত্বনা গোল পেল ঠিকই। কিন্তু ম্যাচে তার কোনও প্রভাব ছিল না। উল্টে যা ছিল, রাতের আলোয় মোহনবাগান মাঠে হাজার কুড়ি দর্শকের উৎসবের মেজাজ। নিজেদের মাঠে লিগের খেলা দেখতে পেলেন সবুজ-মেরুন সদস্য-সমর্থকরা ২০১১-র পর। পাঁচ বছর পর নিজেদের মাঠে ফিরে পাঁচ গোল। মরসুমের শুরুটা ভালই হল মোহনবাগানের। অপেক্ষাকৃত তরুণদের নিয়ে এবং তরুণ কোচ শঙ্করলাল চক্রবর্তীর প্রশিক্ষণে ‘সরকারি’ প্রথম ম্যাচে!

    No comments