• Breaking News

    বিদেশিদের ছাড়া চেন্নাইয়িন কি পারবে সাফল্য ধরে রাখতে?


    mরাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    (আইএসএল প্রেস রিলিজ)

    ফুটবলের সঙ্গে বহুদিনের সম্পর্ক মার্কো মাতেরাজ্জির। খুব ভাল করেই জানেন, ওপরে ওঠা যতটা কঠিন তার চেয়েও কঠিন শীর্ষস্থানে থেকে-যাওয়া। ২০১৫য় ইন্ডিয়ান সুপার লিগে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর এবার তাঁর বাড়তি চাপ, আইএসএল-এ প্রথম কোচ হিসাবে ট্রফি ধরে-রাখার চ্যালেঞ্জ।

    গতবার দুর্দান্তভাবে ফিরে এসেছিল চেন্নাইয়িন এফসি। একটা সময় তারা ছিল পয়েন্ট তালিকার শেষে। মনে হচ্ছিল যে, চেন্নাইয়িন বোধহয় সেমিফাইনালেও পৌঁছতে পারবে না। কিন্তু ২০০৬ বিশ্বকাপজয়ী ইতালির সদস্য মাতেরাজ্জির পরিকল্পনায় রূপকথাসম ফিরে-আসা চেন্নাইয়িনের,ফাইনালে এফসি গোয়াকে ৩-২ ব্যবধানে হারিয়ে ট্রফিজয়ও।

    ‘গত বছর আমরা দেখিয়ে দিয়েছিলাম, দলের গুণগত উৎকর্ষ এবং ফুটবলারদের চারিত্রিক দৃঢ়তা।না হলে, পয়েন্ট তালিকায় সবার শেষে থাকা অবস্থা থেকে উঠে এসে প্লে অফে পৌঁছতে পারতাম না।যোগ্য হিসাবেই শেষে ট্রফিও জিতেছিল চেন্নাইয়িন,’ বলেছেন মাতেরাজ্জি।

    এবারও কি তেমন কিছু করে দেখানো সম্ভব? মাতেরাজ্জির কথায়, ‘দেখুন ট্রফি জেতার চেয়ে জেতা-ট্রফি ধরে রাখা সবসময়ই বেশি কঠিন। কিন্তু দলের ফুটবলারদের দক্ষতায় আস্থা আছে। আবারও জিততেই পারি।’

    কলম্বিয়ার স্ট্রাইকার স্তিভেন মেন্দোজার গোলখিদে টেনে নিয়ে গিয়েছিল গতবার, চেন্নাইয়িনকে।আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের মেজর লিগ সকার-এ (এমএলএস) নিউ ইয়র্ক সিটি এফসি-র হয়ে খেলছেন এখন মেন্দোজা। গতবার তিনিই ছিলেন প্রতিযোগিতার সর্বোচ্চ গোলদাতা, সেরা ফুটবলারও।নিয়মিত গোল করতে শুরু করেছিলেন একেবারে শুরুর ম্যাচগুলো থেকেই। এবার কিন্তু তাঁকে পাচ্ছে না চেন্নাইয়িন। এমন স্ট্রাইকারের উপস্থিতি বিপক্ষের মনে ভয় ধরিয়ে দিত। একই সঙ্গে ব্রুনো মেলিসারিকেও হারিয়েছে চেন্নাইয়িন, যিনি চলে গিয়েছেন দিল্লি ডায়নামোস দলে। গোল পাওয়ার জন্য এখন তাঁদের তাকিয়ে থাকতে হবে জেজে লালপেখলুয়ার দিকে।

    গত বছর জেজে গোল করেছিলেন ছ’টি, সঙ্গে তিনটি গোলের পাস। সেই ছন্দই ধরে রেখেছেন ভারতের জাতীয় দলের হয়ে, আন্তর্জাতিক ম্যাচে।

    চেন্নাইয়িনের কাছে আরও একটি বড় ধাক্কা, গোলরক্ষক এদেল বেতে-কে হারানো। আর্মেনিয়ার গোলরক্ষক একমাত্র ফুটবলার যিনি দুটি আইএসএল খেতাবই জিতেছেন দুটি আলাদা দলের হয়ে।এবার তিনি এফসি পুনে সিটি-তে। তাঁর আবার লক্ষ্য টানা তিনবার আইএসএল খেতাবজয়ী দলে-থাকা,তিনটি ভিন্ন দলের হয়ে। কিন্তু, তাঁর অনুপস্থিতি নিশ্চিতভাবেই প্রভাব ফেলবে চেন্নাইয়িনে, যে-সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চেন্নাইয়িন সই করিয়েছে জামাইকার জাতীয় দলের গোলরক্ষক ডুওয়েইন কের-কে।

    তবে, মার্কি ফুটবলার এবং গতবারের অধিনায়ক এলানো ব্লুমারকেও এবার পাচ্ছে না গতবারের চ্যাম্পিয়নরা, যা বাড়তি চাপ।

    চেন্নাইয়িন প্রথম বছর থেকেই নজর দিয়েছিল ধারাবাহিকতায়। প্রথম বছরের ৯ জন ফুটবলারকে ধরে রেখেছিল দ্বিতীয় মরসুমে। এবার তো রেকর্ড ১৪জনকে রেখে দিয়েছে, গতবারের দলের। আর কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজির এই সুবিধা নেই। মাতেরাজ্জি কাজ করতে পারবেন তাঁদের নিয়েই যাঁদের সঙ্গে করে এসেছিলেন, চ্যাম্পিয়ন হওয়ার বছরে।

    আর সেই সুবিধার প্রতিফলন পাওয়া গিয়েছে ইতালিতে। প্রাক-মরসুম অনুশীলন করতে গিয়ে টানা তিনটি ম্যাচে জিতেছিল চেন্নাইয়িন।

    ‘বরাবরের মতোই একেকটা করে ম্যাচ নিয়ে ভাবতে চাই। জানি, প্রতিটি দলই এবার আরও ভাল।আইএসএল-এ হাড্ডাহাড্ডি প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়। ম্যাচগুলোও খেলতে হয় বেশ গায়ে-গায়ে। মাঝে বেশিদিন সময় থাকে না। ফলে, সব দলের সামনেই সুযোগ থাকে প্রথম চারে থাকার। সেটাই আমাদেরও প্রথম লক্ষ্য - সেমিফাইনালে পৌঁছনো। তারপর দেখা যাবে নকআউটে কী করা যায়,’ বলেছেন মাতেরাজ্জি।

    তিন তারকা বিদেশি ফুটবলারের অনুপস্থিতিতে যদি কাগজে-কলমে খানিকটা কমজোরিও মনে হয় চেন্নাইয়িনকে, তাদের সমর্থকদের জন্য ভাল খবর, বার্নার্দ মেন্দি ও রাফায়েল অগুস্তো-কে রেখে দিয়েছে দল, যাঁদের পায়েই নির্ভর করবে চেন্নাইয়িনের খেলা। জন আর্নে রিসে এবার তাদের মার্কি ফুটবলার, রক্ষণ আরও নিরাপদ রাখতে। আর দিল্লি ডায়নামোস থেকে সই করানো হয়েছে মিডফিল্ডার হ্যানস মুল্ডারকে।

    তাই কোনও কিছুই শেষ হয়ে যায়নি চেন্নাইয়িনের। গতবারের মতোই তারা আবারও অবাক করে দিতেই পারে। বিশেষত যেখানে রিজার্ভ বেঞ্চে থাকবে মাতেরাজ্জির উদ্দীপ্ত উপস্থিতি। কঠোর পরিশ্রম ও সুচারু পরিকল্পনায় যে কোনও পরিস্থিতি সামলাতে যাঁর জুড়ি নেই।

    No comments