• Breaking News

    দুই অধিনায়কই কি অনুপস্থিত কেরল-মুম্বই ম্যাচে?

    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ

    kerala-blasters-vs-mumbai-city-fc-1415772162

    কেরালা ব্লাস্টার্স আর মুম্বই সিটি এফসি, দুই দলই হয়ত শুক্রবার কোচির জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে পাচ্ছে না দুই অধিনায়ককে।

    মু্ম্বই সিটির অধিনায়ক দিয়েগো ফোরলান দলকে সাহায্য করেছিলেন প্রথম দুটি জয়ে। শেষ ম্যাচে নর্থইস্ট ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে খেলেননি। যাননি কেরলেও, শুক্রবারের ম্যাচ খেলতে।

    ‘দলের সঙ্গে কেরলে যায়নি দিয়েগো। মেডিক্যাল স্টাফদের সঙ্গে রীতিমতো পরিশ্রম করছে, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সুস্থ হয়ে মাঠে ফিরতে,’ বলেছেন মুম্বইয়ের কোচ আলেকজান্দ্রে গিমারায়েস।

    উল্টোদিকে, কেরালা ব্লাস্টার্স দলও সমস্যায়। সেদরিক এঙ্গবার্ত আগের ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। কিন্তু ম্যাচের মাঝপথেই চোট পেয়ে বেরিয়ে যেতে বাধ্য হন। তিনিও লড়ছেন,মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে সুস্থ হয়ে মাঠে ফিরে আসতে।

    ‘সত্যি বলতে কী, ঠিক জানি না কী অবস্থা এখন,’ বলেছেন কেরলের কোচ স্টিভ কোপেল। শুক্রবার মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে এঙ্গবার্তকে পাবেন কিনা, প্রশ্নের উত্তরে।

    ‘শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করব, ও সুস্থ হল কিনা জানতে। গত ম্যাচে যখন চোট পেয়ে বেরিয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিলাম,এই ম্যাচে পাব না। কিন্তু এত লড়াকু যে, সব রকমের পরিশ্রম করছে ফিরে আসতে,’ বলেছেন কেরালা ব্লাস্টার্সের ম্যানেজার কোপেল।

    তবে, হোমটিমের সুবিধা, মার্কি ফুটবলার অ্যারন হিউজ ফিরে আসছেন। নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড ২০১৬ ইউরোর দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছেছিল। ভাল খেলেছিলেন হিউজ। এবার বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে দেশের হয়ে খেলে ফিরেছেন। আশা করা হচ্ছে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে খেলবেন।

    প্রথম তিন ম্যাচ থেকে কেরল মাত্র একটি পয়েন্টই পেয়েছে। এখনও পর্যন্ত তৃতীয় হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগে কেরলই একমাত্র দল যারা তিন ম্যাচে একটিও গোল করেনি। অথচ,ঘরের মাঠে প্রতিটি খেলায় অন্তত ৫৫ হাজারের গ্যালারির সমর্থন পেয়েও। কোপেল বলেছেন, তাঁর ফুটবলাররা প্রাণপণ চেষ্টা করছেন, লিগে নিজেদের অবস্থান পাল্টাতে।

    ‘ফুটবলাররা নিজেদের দায়িত্ব জানে, বোঝে। ঘরের মাঠে ভক্তদের আনন্দ দিতে ওরা শেষ ম্যাচে সর্বস্ব দিয়েছিল মাঠে,জয় পেতে। মনে তো হচ্ছে, জয়ের খুব কাছাকাছি আছি আমরা। দল হিসাবে আমার তো মনে হয়, টানা ৫-৬ ম্যাচ জেতার ক্ষমতা আছে আমাদের,’ বলেছেন কোপেল।

    মুম্বই সিটি এফসি এবার আইএসএল-এ শুরুটা করেছে দুরন্ত। এখনও অপরাজিত, মুম্বই সিটি ৩ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট তুলে নিয়েছে। কোচ গিমারায়েস যদিও বলেছিলেন প্রথম তিন ম্যাচে ৯ পয়েন্ট তোলাই লক্ষ্য ছিল, যা পেয়েছেন তাতে সন্তুষ্ট হওয়ার কারণ যথেষ্ট।

    ‘হ্যাঁ, প্রথম তিন ম্যাচ থেকে ৯ পয়েন্ট পেলে ভালই হত। দল খেলেওছিল সেই লক্ষ্যেই। কিন্তু ফুটবল এমনই। পয়েন্টের থেকেও অগ্রাধিকার বেশি পারফরম্যান্সে। প্রাক মরসুমে যেমন অনুশীলন হয়েছিল তার ফল পাওয়া যাচ্ছে এখন। আমি সন্তুষ্ট,’ মনে করছেন কোস্তা রিকান কোচ।

    মুম্বই সিটি এফসি এই তিনটি ম্যাচই খেলেছে পুনে এবং মুম্বইয়ের তুলনায় ছোট স্টেডিয়ামে। এবার তাদের খেলতে হবে কেরলের বড় স্টেডিয়ামে যেখানে ৫৫ হাজার সমর্থক সরবে সমর্থন জানাবেন স্থানীয় দলকে। কোস্তা রিকার কোচ জানেন,বড় চ্যালেঞ্জ সামনে।

    ‘বড় স্টেডিয়ামে খেলা এবার। সবাই জানি পরিস্থিতি ঠিক কী রকম হবে। কিন্তু ফুটবলাররা তৈরি সেই চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায়। আশা করছি, একই রকম ভাল খেলবে ওরা। আরও ভালও খেলতে পারে কেরলের বিরুদ্ধে, আগের ম্যাচগুলোর তুলনায়,’ বলেছেন কোচ।

    No comments