• Breaking News

    পুনেকে হারিয়ে নর্থইস্ট উঠে এল শীর্ষে

    এফসি পুনে সিটি ০        নর্থইস্ট ইউনাইটেড এফসি ১


                    (আলফারো ৭৯)


     

    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ



    ঘরের মাঠে টানা তিন ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে সেমিফাইনালের দিকে এগিয়ে যেতে চেয়েছিলেন আন্তোনিও আবাস। কিন্তু, যা চাইবেন তা-ই পেলে আর ফুটবল কেন! তাই এই তিনের প্রথম ম্যাচেই হোঁচট! ঘরের মাঠে মুম্বইয়ের পর এফসি পুনে সিটি আবার হারল নর্থইস্টের কাছেও। আর, এই তিন পয়েন্ট মিলিয়ে চার ম্যাচে ৯ পয়েন্টসহ তৃতীয় হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগের শীর্ষে উঠে এল জন আব্রাহামের নর্থইস্ট ইউনাইটেড।

    যোগ্য দল জিতেছে, সন্দেহ নেই। কারণ, প্রথমার্ধে নির্মল ছেত্রী লাল কার্ড দেখার পর দশজনেও আক্রমণের রাস্তা ছাড়েনি নর্থইস্ট। ঘরের মাঠে পুনের উচিত ছিল, একজন বেশি থাকার সুবিধা আদায় করে গোল তুলে এগিয়ে যাওয়া। কিন্তু নর্থইস্টের নিরন্তর আক্রমণের চাপে তা সম্ভব হয়নি যেমন,শেষ দিকে বেশ কয়েকবার গোলমুখ খুলে ফেলেও পরিবর্ত ত্রাওরের ব্যর্থতায় সমতা ফেরানো যায়নি। সুব্রত পালও নির্ভরতা জুগিয়েছিলেন নর্থইস্টকে, তিনকাঠির তলায়।

    নর্থইস্ট অবশ্য লোকবলে পিছিয়ে পড়েছিল ৩৬ মিনিটে। সরাসরি লাল কার্ড দেখেছিলেন নির্মল। ফাউল করেছিলেন আনিবালের পায়ে, স্টাড-উঁচু ফাউল যা এখন আন্তর্জাতিক রেফারিরা একেবারেই মাফ করেন না। প্রণয় হালদারের পর দ্বিতীয় ফুটবলার হিসাবে লাল কার্ড দেখেছিলেন নির্মল। তবে,প্রণয় দেখেছিলেন দুবার হলুদ কার্ডের ফলে, নির্মল সরাসরি।

    ফেরনান্দো রামিরেস, মেক্সিকোর রেফারি, অবশ্য ৭১ মিনিটে সেই সুবিধাও কেড়ে নিয়েছিলেন হোমটিমের কাছ থেকে। পুনের এদুয়ার্দো পেরিরাকে দ্বিতীয়বার হলুদ কার্ড দেখিয়ে। ৩৫ মিনিট দশজনে খেলেও নর্থইস্ট গোল খায়নি, যা তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছিল। যার ফলও পায় তারা, কিছুক্ষণ পরই।

    ম্যাচের একমাত্র গোল ৭৯ মিনিটে। রোমারিক থেকে ভেলেজ-আলফারো হয়ে কাতসুমির কাছে বল গিয়েছিল বক্সের ডানদিকে। কাতসুমি গোলের চেষ্টায় শট নিয়েছিলেন যা বক্সের মধ্যে থাকা পুনের এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে পৌঁছে গিয়েছিল আলফারোর কাছে। চকিতে বাঁপায়ের শটে এদেল বেতে-কে পরাস্ত করে এবারের আইএসএল-এ নিজের তৃতীয় গোল পেয়ে গেলেন আলফারো, চতুর্থ ম্যাচে। ম্যাচের নায়ক উরুগুয়ের ফুটবলার উঠে এলেন সর্বোচ্চ গোলদাতা হিসাবেও।

    ৮৬ মিনিটে ভেলেজ নিজেই ২-০ করে দিতে পারতেন। একেবারে ফাঁকায় একা বেতের মুখোমুখি বল পেয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর ডানপায়ের শট সোজা বেতের পায়ে। পরে আবার ভেলেজ সাজিয়ে দিয়েছিলেন বাঁদিকে রোমারিককে। কিন্তু, আবারও ত্রাতা গত দুবারের চ্যাম্পিয়ন দলে-থাকা গোলরক্ষক সেই বেতে।

    এখনও একটি ম্যাচ বাকি আবাসের, সাইডলাইনে ফিরতে। তিন ম্যাচে তিন পয়েন্ট। শুরুতে আরও একটু ভাল জায়গায় থাকতে চেয়েছিলেন প্রথম আইএসএল জয়ী কোচ আবাস,নিশ্চিত। কিন্তু নিজের নতুন ঠিকানায়, পুনেতে, তাঁকে সেই স্বস্তি দিলেন না তাঁর স্ট্রাইকাররা!

    No comments