• Breaking News

    অবশেষে চোপড়ার গোল! জিতল কেরল

    কেরালা ব্লাস্টার্স ১      মুম্বই সিটি এফসি ০


    (চোপড়া ৫৮)


    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ

    [caption id="attachment_1988" align="alignleft" width="300"]গোলের ঠিক আগের মুহূর্তে চোপড়া। ছবি - আইএসএল গোলের ঠিক আগের মুহূর্তে চোপড়া। ছবি - আইএসএল[/caption]

    হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগের সঙ্গে ইংরেজদের সম্পর্ক খুব ভাল ছিল না, যা নিয়ে চিন্তিত ছিলেন ইংরেজ কোচ স্টিভ কোপেল। কথা দিয়েছিলেন, সেই সম্পর্কের ধারা পাল্টাতে চেষ্টা করবেন। কোচিতে নিজেদের মাঠে শেষ পর্যন্ত এমন একটা দিন এল তৃতীয় আইএসএল-এ যেখানে ইংরেজ বা ইংল্যান্ড বা ব্রিটিশ দ্বীপপুঞ্জের কোচ-ফুটবলাররা থাকলেন শীর্ষে!

    কেরালা ব্লাস্টার্স জিতল, কোচ কোপেল ইংরেজ। ম্যাচের একমাত্র গোল মাইকেল চোপড়ার যিনি ফুটবল খেলেছিলেন ইংল্যান্ডে। আর, মুম্বইকে সমতা ফেরাতে দিলেন না অ্যারন হিউজ, যাঁর দেশ নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড।

    দলের পারফরম্যান্স যেমনই হোক না কেন, হলুদ ঝড় বয়ে যায় কোচিতে, কেরালা ব্লাস্টার্সের খেলা থাকলেই। ৫৫ হাজার মানুষ মাঠে আসেন প্রিয় দলকে সমর্থন জানাতে। আগের তিন ম্যাচে একটিও গোল না-পাওয়া ব্লাস্টার্স, শুক্রবার শুরুই করেছিল আক্রমণাত্মক মেজাজে। রফিক, রফি, চোপড়া,বেলফোর্ট – চার ফরোয়ার্ডকে প্রথম এগারয় রেখেই শুরু করেছিলেন কোপেল। সুযোগ তৈরি হচ্ছিল, কিন্তু গোল আসছিল না যথারীতি। রফি শুরুতেই বেশ কয়েকবার সুযোগ নষ্ট করেন। বিশেষ করে কর্নার থেকে বিনা বাধায় হেড করার সুযোগ পেয়েও তিনকাঠিতে রাখতে পারেননি, যে ভুলের মাসুল দিতে হতে পারত কেরলকে, গোলটা না-পেলে।

    শেষ পর্যন্ত প্রতিযোগিতায় প্রথম গোল পেল কেরল, ৫৮ মিনিটে। বেলফোর্ট শট নিতে চেয়েছিলেন গোলে। বল এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে চলে এসেছিল মাইকেল চোপড়ার পায়ে। সামনে একা গোলরক্ষক। ডানপায়ের টোকায় কেরলের হয়ে তৃতীয় আইএসএল-এ প্রথম গোল এনে দিলেন নিউক্যাসলের প্রাক্তন ফুটবলার। সেই কারণেই ম্যাচের নায়কও হলেন চোপড়া।

    ৬৯ মিনিটে ১-১ করে ফেলতে পারতেন সোনি নর্দে, কিন্তু কেরলের মার্কি ফুটবলার অ্যারন হিউজ গোললাইন থেকে বল বের করে দেন। হাইতির ফরোয়ার্ড মাঠে আসার তিন মিনিটের মধ্যেই পৌঁছে গিয়েছিলেন গোলমুখে। সন্দেশ ঝিঙ্গনকে পরাস্ত করে ভেতরে ঢুকে এসে শট নিয়েছিলেন যা কেরলের গোলরক্ষক সন্দীপ নন্দীকেও পরাস্ত করে ফেলেছিল। কিন্তু নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের হয়ে ২০১৬ ইউরোয় খেলে-আসা হিউজ ঠিক সময়ে ঠিক জায়গায় পৌঁছে বল বের করে দেন অসাধারণ দক্ষতায়।

    তিন ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে মুম্বইয়ের সামনে সুযোগ ছিল, এই ম্যাচে জিতে ১০ পয়েন্ট নিয়ে তালিকায় শীর্ষে পৌঁছনর। কিন্তু এই মরসুমে প্রথম হারল মুম্বই। থেকে গেল দ্বিতীয় স্থানে,নর্থইস্ট ইউনাইটেডের পেছনেই। কোচ গিমারায়েস বাড়তি রক্ষণাত্মক ছিলেন। চোট থাকায় ফোরলান ছিলেন না, প্রণয় হালদার ছিলেন না আগের ম্যাচে লাল কার্ড দেখে। সেই কারণেই কি?

    তিন পয়েন্ট পেল কোপেলের দল। কিন্তু, টানা তিনটি ম্যাচ ঘরের মাঠে খেলে এখন ষষ্ঠ কেরলের আগামী চার ম্যাচ‘অ্যাওয়ে’। যথাক্রমে পুনে, গোয়া, চেন্নাই ও দিল্লির বিরুদ্ধে। আইএসএল-এ সত্যিই দম ফেলার ফুরসত নেই কারও!

    No comments