• Breaking News

    গতবারের ফাইনাল ফিরছে তাড়াতাড়িই!

     

    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ

    chennai-vs-goa

    চেন্নাইয়িন এফসি-র প্রধান কোচ মার্কো মাতেরাজ্জি নতুন চ্যালেঞ্জ রেখেছেন ফুটবলারদের সামনে। চেন্নাইকে সত্যি সত্যি ভালবাসলে জিততে শুরু করো, না হলে হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগের সেমিফাইনালে জায়গা তো পাওয়া যাবেই না,চেন্নাইয়িনের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কও হয়ত শেষ হয়ে যাবে।

    ২০০৬ সালে ইতালির হয়ে বিশ্বকাপ জিতেছিলেন মাতেরাজ্জি। চেন্নাইয়িনে আছেন শুরুর সে ২০১৪ সাল থেকে। গত বছর জিতেছেন আইএসএল খেতাবও। এ-মরসুমে অবশ্য দুটি ম্যাচ থেকে চেন্নাইয়িনের সংগ্রহ মাত্র একটি পয়েন্ট। মাতেরাজ্জি খুব ভাল করেই জানেন, বৃহস্পতিবার চেন্নাইয়ের জওহরলাল স্টেডিয়ামে এফসি গোয়ার বিরুদ্ধে পারফরম্যান্সে বিরাট উন্নতি করতেই হবে তাঁর ফুটবলারদের।

    গত মরসুমে ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল এই দু’টি দলই। ম্যাচের একেবারে শেষ দিকে পরপর দুটি গোল করে নাটকীয়ভাব ৩-২ জিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল চেন্নাই।

    ‘যদি সুযোগ থাকত দলের ১১ জনকেই পাল্টে ফেলার, সম্ভব হলে আমাকেও ধরে ১২ জনকে বদলানোর, দিল্লি ডায়নামোসের বিরুদ্ধে শেষ খেলায় হয়ত তা-ই করে ফেলতাম! কিন্তু নিয়মে বাঁধা আমরা সবাই, জানি যে তিনজনকেই শুধু পাল্টানো সম্ভব। বৃহস্পতিবার আবার সেরা এগারজনকে বেছে মাঠে নামাতে হবে,’ বলছিলেন যখন মাতেরাজ্জি, হতাশা গোপন থাকেনি আগের ম্যাচে ১-৩ হারের। তাঁর মতে যা ঘরের মাঠে সবচেয়ে জঘন্য হার, গত তিন মরসুমে।

    তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, গত বছরের ফাইনালের কোনও প্রভাব কি পড়বে এই ম্যাচে? মাতেরাজ্জি কিন্তু বলেছেন, যেভাবে হেরেছিল এফসি গোয়া, যদি তিনি সেভাবেই হারতেন, মন খারাপ হওয়ার অনেক কারণ থাকত তাঁর কাছে।

    ’৮৯ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে থেকে যদি ম্যাচের শেষে হারতে হয়, মন তো খারাপ থাকবেই। ওরা বাড়তি তাগিদ দেখাবেই ম্যাচে। কিন্তু আমরাও দিল্লির কাছে হারার পর এই ম্যাচ খেলব। সুতরাং, আমাদেরও প্রয়োজনের চেয়ে বেশি কিছুই দিতে হবে মাঠে। যদি পারি, প্লে অফে খেলার সুযোগ পাওয়া যেতেও পারে ভবিষ্যতে। যদি না পারি, খুবই খারাপ হবে। সব কিছু ঠিকঠাক না চললে, সামনের বার প্রধান কোচ হিসাবে না-ও থাকতে পারি। ক্লাবকে যে সত্যি সত্যিই ভালবাসি সবাই, দেখানোর সময় এসেছে,’ বলেছেন মাতেরাজ্জি।

    তৃতীয় মরসুমের আইএসএল-এ এখনও এফসি গোয়াই একমাত্র দল যাদের ঘরে একটিও পয়েন্ট নেই, দুটি ম্যাচের পর। নর্থইস্ট ইউনাইটেড এবং এফসি পুনে সিটির কাছে পরপর দুটি ম্যাচে হারের পরও কোচ জিকো মনে করছেন, তাঁর দল ঘুরে দাঁড়াতেই পারে।

    ‘প্রস্তুতি একেবারে ঠিকঠাক হয়েছে। ভাল কিছু্র আশাই করছি। প্রথম দুটো ম্যাচেও মোটেই খারাপ খেলিনি। কিন্তু ম্যাচের ফল আমাদের বিরুদ্ধে গিয়েছিল। আবারও ভাল খেলার জন্য তৈরি আমরা,’ বলেছেন জিকো। তবে, মনে করিয়ে দিয়েছেন, অতীতের দিকে তাকিয়ে বাড়তি অনুপ্রেরণা খুঁজতে রাজি নন তিনি।

    ‘প্রথম দুটো ম্যাচের কথা যদি মনে করেন, বহু সুযোগ তৈরি করেছিলাম আমরা। দুটি ম্যাচের পরিসংখ্যান দেখুন, সেরা ফুটবলার দুই গোলরক্ষক। আক্রমণাত্মক ফুটবলই খেলেছি,কিন্তু দুর্ভাগ্য, গোল পাইনি। গোল পাওয়ার আত্মবিশ্বাসে খামতি থেকে গিয়েছে কোনওভাবে,’ বলেছেন জিকো।

    No comments