• Breaking News

    দিল্লির আক্রমণ বনাম কেরলের দুর্ভেদ্য রক্ষণ

    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ

    [caption id="attachment_2192" align="alignleft" width="300"]ছবি - আইএসএল ছবি - আইএসএল[/caption]

    তৃতীয় হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগে দিল্লি ডায়নামোস এখনও ঘরের মাঠে একটিও ম্যাচ জেতেনি। কিন্তু দলের ফরোয়ার্ড লাইনে আস্থা আছে কোচ জিয়ানলুকা জামব্রোতার। মনে করছেন শুক্রবার দিল্লির জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে কেরালা ব্লাস্টার্সের বিরুদ্ধে ধারা পাল্টে ফেলবে তাঁর দল।

    ঘরের মাঠে তিনটে ম্যাচই ড্র করেছে দিল্লি। এবার তাদের সামনে কেরল। আইএসএল-এ এবার যাদের রক্ষণের রেকর্ড সবচেয়ে ভাল। দিল্লির অবশ্য শক্তি তাদের ফরোয়ার্ড লাইন। এখনও পর্যন্ত মোট ১০ গোল করেছে তারা। এবারের আইএসএল-এ সব দলের চেয়ে বেশি।

    ‘আমরা জানি কেরল বেশ ভাল দল। ভাল লড়ে, জেতেও। হারানো কঠিন। আমাদের কাজটাও কঠিন হবে, কিন্তু আমরা তৈরি,’ বলেছেন জামব্রোতা। তাঁর দল এখনও পর্যন্ত ৪৪টা শট রেখেছে গোলে, যা এখন সর্বোচ্চ।

    শেষ ম্যাচে এফসি গোয়াকে হারানোর পর দিল্লির আশা, এই ম্যাচেও জয়ের ধারা বজায় থাকবে। মার্সেলিনিও ও গ্যাডজের দ্বিতীয়ার্ধের গোলে ২-০ জিতেছিল দিল্লি। জামব্রোতা অবশ্য পরিষ্কার বার্তা দিয়ে রেখেছেন দলকে যে, আগের ম্যাচের জয় ধরে বসে থাকলে চলবে না।

    ‘ম্যাচটা কিন্তু বেশ কঠিন ছিল। তবে, গোয়ার বিরুদ্ধে কী হয়েছিল, ভুলে যাওয়াই ভাল। জিতেছি, ঠিক আছে। এবার নতুন ম্যাচ, আরও একটা জয় পাওয়াও সমান গুরুত্বপূর্ণ,’বলেছেন ইতালির হয়ে বিশ্বজয়ী দিল্লির কোচ।

    পরপর পাঁচ ম্যাচে হারেনি কেরালা ব্লাস্টার্স। এই ম্যাচে না হারলেই তারা আইএসএল ইতিহাসে সর্বোচ্চ ছ’টি ম্যাচে না-হারার রেকর্ড করবে। ৭ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট আছে কেরলের। তিনবারের আইএসএল-এ এবারই সেরা শুরু তাদের।

    তবে, কেরলের সমস্যা গোলখরা। কোচ স্টিভ কোপেল যেমন জানাতে ভোলেননি, আরও বেশি গোলের সন্ধানে থাকবেন তাঁরা, যাতে পরে গিয়ে সমস্যা না হয়।

    ‘সাফল্যের তো কোনও নির্দিষ্ট ফর্মূলা হয় না! প্রথম বছর কেরল ফাইনালে পৌঁছেছিল মাত্র ৯ গোল করে। বলছি না যে,আমরা সেই রেকর্ডটাই ধরার চেষ্টা করছি। উল্টে, প্রতি ম্যাচেই চেষ্টা থাকছে গোল বাড়ানোর। গতবার আবার কেরল ২০ গোল করে শেষ করেছিল তালিকায় সবার নিচে থেকে। এই তথ্যে বোঝা সম্ভব যে, রক্ষণ ও আক্রমণে ভারসাম্য ঠিক কতটা জরুরি,’ বলেছেন কোপেল।

    আইএসএল এখন মধ্যপথে। কোপেল মনে করছেন, এবার লিগ আরও আকর্ষণীয় হবে কারণ সেমিফাইনালে যাওয়ার জন্য দলগুলো আরও বেশি করে উৎসাহী হবে আক্রমণে, ঝুঁকি নেবে।

    ‘প্রতিযোগিতার প্রথমার্ধে সব দলই একটু বেশি ভীত থাকে,হারার ব্যাপারে। শেষার্ধে এসে এবার প্লে অফে জায়গা পাওয়ার লড়াই সামনে যখন, বুঝতে পারে জেতা ছাড়া উপায় নেই। শেষের দিকে প্রতিটি ম্যাচেই লক্ষ্য পাল্টাবে সব দলের। আমার মনে হয় লিগ বেশি জমবে,’ বলেছেন কেরলের কোচ।

    শুক্রবার জিতলে দিল্লি ডায়নামোস উঠে আসবে তালিকায় শীর্ষে, এই মরসুমে প্রথম বার। কেরল শুরু করেছিল পরপর দুটি ম্যাচে হেরে। জিতলে তারাও প্রথমবার জায়গা করে নেবে সেরা চার দলের মধ্যে।

    No comments