• Breaking News

    রেয়াল-বার্সেলোনা, লড়াই চলছেই!

    সুযারেজের জোড়া গোল, রেনালদোর গোল ও পেনাল্টি-মিস। দুই দলেরই পয়েন্ট ৮১। রেয়ালের হাতে বাড়তি একটি ম্যাচ।


    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    বুন্দেসলিগায় চ্যাম্পিয়ন হয়ে গেল বায়ার্ন মিউনিখ, তিন ম্যাচ বাকি থাকতেই। আর লা লিগার খেতাবি দৌড় এখনও জমজমাট, সেই তিন ম্যাচ বাকি থাকতেই!

    লুইস সুয়ারেজ বেশ কিছুদিন পর গোল পেয়ে এগিয়ে দিয়েছিলেন বার্সেলোনাকে, ৫০ মিনিটে। পরের রাকিতিচের গোল, যে রাকিতিচ গত ম্যাচে হাভিয়ের মাসচেরানোকে পেনাল্টি মারতে দিয়ে এনে দিয়েছিলেন বার্সেলোনার জার্সিতে মাসচেরানোর প্রথম গোল। সুয়ারেজ দ্বিতীয় গোলও পেলেন ৮৬ মিনিটে, আবারও রক্ষণের ভুলে। ফলে, রেয়ালকে ধরে ফেলল মেসির বার্সেলোনা আবার। কিন্তু ৩৫ ম্যাচে ৮১ পয়েন্ট মেসিদের। রোনালদোদের পয়েন্ট একই, খেলেছেন একটি ম্যাচ কম। তাই, মুখোমুখি সাক্ষাতের হিসাবে যতই বার্সেলোনা এগিয়ে থাকুক, ‘টেকনিক্যালি’ রেয়ালই এগিয়ে!

    সুয়ারেজের প্রথম গোলে ভুল এসপানিওলের ডিফেন্ডার খুরাদো-র। তাঁর ব্যাকপাস সুয়ারেজ দৌড়ে এসে ধরে ডানপায়ের বাইরের দিক দিয়ে শটে গোলে পাঠিয়েছিলেন সহজেই। তার আগে ম্যাচে দুরন্ত থাকলেও ওই প্রথম ভুল এসপানিওল রক্ষণের যার পরিপূর্ণ সদ্ব্যবহার করেছিল বার্সেলোনা।

    সেই খুরাদোই আবার ম্যাচের একেবারেই শুরুতে সোনার সুযোগ নষ্ট করেছিলেন। কাইসেদো টেনে নিয়ে গিয়েছিলেন পিকে-কে। খুরাদোর সামনে ছিলেন একা টের স্টেগেন। দূরের পোস্টে রাখতে গিয়ে বাইরে মেরেছিলেন খুরাদা। ঘরের মাঠে অত তাড়াতাড়ি গোল পেয়ে গেলে নিশ্চিতভাবেই প্রতি আক্রমণে ওঠার দিকে আরও বেশি নজর দিতে পারতেন এসপানিওলের ফুটবলাররা।

    তুলনায় ছোট দলের যা কৌশল থাকে, বক্সে এবং বক্সের ওপরে আটজনকে দাঁড় করিয়ে বার্সেলোনার থেকে পয়েন্ট কেড়ে নেওয়া, ‘দের্বি বার্সেলোনি’-তেও এসপানিওল খেলছিল একই পথে। সুয়ারেজের গোলটা ভেঙে দিল বাঁধ। রাকিতিচের গোলে তিন পয়েন্ট নিশ্চিত। শেষে সুয়ারেজকে আরও একবার গোলের সুযোগ এনে দিয়ে ধন্যবাদ পেতে পারে এসপানিওল রক্ষণ। মেসির পাস ধরতে গিয়ে ভুল করে সুয়ারেজের পায়েই বল পাঠিয়ে দেওয়া হয়, আবারও।

    রেয়াল মাদ্রিদ চাপ বাড়িয়েছিল আগেই। ভালেন্সিয়ার বিরুদ্ধে ২-১ জিতে। রোনালদোর গোলে প্রথমে এগিয়ে গিয়েছিল রেয়াল। পরে, লুকা মোদরিচকে বক্সে ফাউল করা হয়েছে অভিযোগে পেনাল্টি দেওয়া হয়েছিল রেয়ালকে। এমন পেনাল্টির সিদ্ধান্ত যা বোধহয় রোনালদোকেও বাধ্য করেছিল বেশ খারাপ শট নিতে! দিয়েগো আলভেসের সেই পেনাল্টি বাঁচাতে অসুবিধে হয়নি। ভালেন্সিয়া গোল শোধ করে ফেলার পর যখন মনে হচ্ছিল পয়েন্ট হারাতে চলেছে রেয়াল, ব্রাজিলীয় মার্সেলো এগিয়ে আসেন। তাঁর গোলেই ২-১। ফলে, ৩৪ ম্যাচে ৮১ পয়েন্ট রেয়ালের।

    সামনের সপ্তাহে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে মাদ্রিদ-ডার্বির আগে নিজেদের শক্তি ঝালিয়ে নিল আতলেতিকো মাদ্রিদও। লাস পালমাসকে হারাল ৫-০। গামেইরোর জোড়া গোল, বাকি গোলগুলি সাউল, পারতে এবং ফেরনান্দো তোরেসের। ৩৫ ম্যাচে ৭১ পয়েন্ট নিয়ে আপাতত তৃতীয় স্থানে আতলেতিকো।

    তিনটি করে ম্যাচ বাকি বার্সেলোনা ও আতলেতিকোর। চার ম্যাচ হাতে রেয়ালের। নিজেদের সব ম্যাচ জিতলে রেয়াল চ্যাম্পিয়ন। কোনও ম্যাচ হারলে এগিয়ে যেতে পারে বার্সেলোনা, যদি সব ম্যাচ জেতে। কিন্তু, জিদানের দলও ২০১২-র পর লা লিগা জিততে বদ্ধপরিকর এবার।

    No comments