• Breaking News

    নিজেদের ফেভারিট ভাবছেন না জিদান

     

    আজ রাত ১২-১৫, চ্যাম্পিয়ন্স লিগে প্রথম সেমিফাইনাল, রেয়াল-আতলেতিকো


    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    মাদ্রিদ-ডার্বি, আবার। এবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে। প্রথম পর্বে আজ (মঙ্গলবার) রাতে খেলা সান্তিয়াগো বের্নাবেউতে।

    রেয়াল মাদ্রিদের কোচ জিনেদিন জিদান মনে করছেন, তাঁরা ফেভারিট নন। ‘নকআউট ম্যাচ সবসময় ৫০-৫০। তা ছাড়া, মাদ্রিদ ডার্বিতে কেউই ফেভারিট থাকে না। যখন খেলতাম, অবস্থা এতটুকুও বদলায়নি এখন। মাদ্রিদে খেলা, তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। সেরা ছন্দে থাকতে হবে সবাইকে। যদি পারি, দেখা যাক, কী হয় মাঠে,’ বলেছেন জিদান।

    রেয়ালের সুবিধা, রাফায়েল ভারানে হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট সারিয়ে ফিরে আসছেন। তবে, পেপে খেলতে পারবেন না, নিশ্চিত। রক্ষণে অধিনায়ক সের্খিও রামোসের সঙ্গে শুরু করবেন ভারানে।

    জিদান অবশ্য প্রথম একাদশ নিয়ে কিছুই বলতে রাজি নন। আহত গ্যারেথ বেলের জায়গায় ইসকো না হামেস রদরিগেজ, কে শুরু করতে পারেন, জানাননি। শুধু বলেছেন, ‘জানি, ইউরোপে সেমিফাইনালে পৌঁছনই বড় কৃতিত্ব। কিন্তু সুযোগ আছে যখন, আরও একটা ধাপ ওপরে উঠতে কে না চায়!’

    প্রশংসা করেছেন আতলেতিকো মাদ্রিদেরও। ‘গত চার-পাঁচ বছর ধরেই আতলেতিকো দুর্দান্ত খেলছে, উন্নতি করছে প্রতি বছর। ওদের সবচেয়ে বড় গুণ, কখনও হাল ছাড়ে না। ঠিক সময়ে সেরাটা বের করে আনতে পারে। ওদের শক্তি, দুর্বলতা জানি। ওরাও নিশ্চয়ই জানে আমাদের শক্তি ঠিক কোথায়। এখন তো আর নতুন কিছু তৈরি করা সম্ভব নয়! তবে, নিজেদের গেমপ্ল্যান নিয়েই বেশি মাথা ঘামাতে চাই।’

    আতলেতিকো মাদ্রিদের সমস্যা অবশ্য রক্ষণ। হোসে খিমেনেজ ও খুয়ানফ্রান-কে সম্ভবত পাচ্ছেন না দিয়েগো সিমিওনে। দুজনেরই চোট। শনিবারের ম্যাচে লাস পালমাসের বিরুদ্ধে খিমেনেজ রাইট ব্যাক হিসাবে খেলতে গিয়ে চোট পেয়েছিলেন। রক্ষণের মাঝখানে হয়ত স্টেফান স্যাভিচ থাকবেন দিয়েগো গোদিনের সঙ্গে।

    সিমিওনে বলেছেন, ‘খেলার শুরুটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। নিজেদের মাঠে ওরা চাইবে শুরুতেই আমাদের আঘাত করতে। যা দল ওদের, করে ফেলতেই পারে। আমরা চাইব, যেভাবে অভ্যস্ত সেভাবেই খেলতে। যে দলই নামুক, আতলেতিকো মাদ্রিদ মাঠে নামবে নিজেদের মাথা উঁচু রাখতে।’

    ইউরোপে ২০১৪ এবং ২০১৬ সালে ফাইনালে খেলেছিল এই দুটি দল। দুবারই জিতেছিল রেয়াল মাদ্রিদ। মাঝে আরও একবার দেখা হয়েছিল কোয়ার্টার ফাইনালে, দু-পর্বে। সেবারও ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোরাই জয়ী। পাল্লা নিঃসন্দেহে ভারী রেয়ালেরই। তবে, ইউরোপে নকআউটে সিমিওনের দলের পক্ষে কিছুই অসম্ভব নয়। বিশেষত যদি ছন্দে থাকেন গ্রিজমান!

    No comments