• Breaking News

    ‘এনডুলকার’ দৃশ্যে কেঁদে ফেলেছিলেন আচরেকার

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    ‘শচীন, এ বিলিয়ন ড্রিমস’ ছবি দেখে মুগ্ধ মাস্টার ব্লাস্টারের ‘দ্রোণাচার্য’ রমাকান্ত আচরেকার। বিশেষ করে তিনি আলোড়িত ছবির ‘এনডুলকার’ দৃশ্যটি দেখে।

    ২০০৭-এর বিশ্বকাপের পর ইয়ান চ্যাপেলের মন্তব্যে প্রচণ্ড ক্রুদ্ধ হয়েছিলেন শচীন তেন্ডুলকার। সেই সময় ইয়ান মন্তব্য করেছিলেন, শচীনের উচিত এবার আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে অনেকক্ষণ খুঁটিয়ে দেখা। অবসর নিয়ে ভাবতেই পারে এখন। পুরো বিষয়টাই দেখানো হয়েছে ছবিতে। এই দৃশ্যটাই জনপ্রিয় হয়েছে ‘এনডুলকার’ নামে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমেও শিরোনাম হয়েছিল ‘এনডুলকার’।

    আচরেকারের মেয়ে দালভি জানিয়েছেন, ‘এই দৃশ্যটা দেখার পর বাবা কথা বলতে পারছিলেন না। কিন্তু তাঁর অভিব্যক্তি থেকে মনের অবস্থাটা বোঝা যাচ্ছিল। ছবিটা বাবার ভাল লেগেছে। শচীনের জন্য বাবা গর্বিত। ছোটবেলা থেকে শচীনের উত্থানের সাক্ষী। কিন্তু এনডুলকার শটটা দেখার সময় উনি আবেগতাড়িত হয়ে পড়েছিলেন।’

    http://www.mid-day.com/articles/sachin-biopic-ramakant-achrekar-got-emotional-after-watching-endulkar-incident/18280181

    ৮৫ বছরের আচরেকার মেয়ে ও নাতিকে নিয়ে স্পেশাল স্ক্রিনিংয়ে ছবিটি দেখেছেন। সেই সময় হাজির ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সকলে, ছিলেন বলিউডের সুপারস্টাররা। এই বয়সেও বসে বসে পুরো ছবিটা দেখেছেন আচরেকার, জানিয়েছেন তাঁর মেয়ে। এত লোকের মাঝেও শচীন এসে খোঁজ নিয়ে গিয়েছেন তাঁর ছোটবেলার কোচের। আচরেকারের পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করেন তিনি। এরপর একসঙ্গে ছবিও তোলেন। ছবি শেষে কোচকে গাড়িতে করে বাড়িও পৌঁছে দিয়েছেন বিশ্ব ক্রিকেটের ‘অর্জুন’।

    ‘দ্রোণাচার্য’-এর নাতি বৈদিক জানিয়েছেন, ‘পর্দায় নিজেকে দেখে আবেগ চেপে রাখতে পারেননি দাদু। তাঁর চোখের কোল বেয়ে তখন ঝরে পড়ছিল আনন্দের অশ্রু।’

    সূত্র – মিডডে, মুম্বই

    No comments