• Breaking News

    গুলিট সহকারী, অ্যাডভোকাট কোচ ডাচদের

    রাইট স্পোর্টস ডেস্ক


    ‘শত্রু নই। দুজনেই দুজনকে খুব ভাল করে চিনি। কিন্তু, দুজনের মতামত ভিন্ন।’

    বক্তা রুড গুলিট। যাঁর সম্পর্কে বলেছিলেন, ডিক অ্যাডভোকাট। সাল ১৯৯৪।

    সেই মন্তব্যের বছর সাড়ে তেইশ পর, নেদারল্যান্ডস জাতীয় দলের কোচ এখন অ্যাডভোকাট আবার। আর, তাঁর সহকারীর নাম গুলিট!

    ফুটবল মাঠে নেদারল্যান্ডসের জঘন্য পারফরম্যান্সের কারণে ড্যানি ব্লিন্ডের চাকরি গিয়েছিল গত মার্চে। ইউরো ২০১৬র মূলপর্বের যোগ্যতার্জনে ব্যর্থ হয়েছিলেন আরিয়েন রবেনরা। আর মার্চে বুলগারিয়ার কাছে হেরে রাশিয়া বিশ্বকাপের যোগ্যতার্জন পর্বে ৫ ম্যাচ পর রয়েছেন চতুর্থ স্থানে।

    কিছু একটা করতেই হত হল্যান্ডের ফুটবল সংস্থাকে। অন্য সব দেশীয় সংস্থার মতো তাঁরাও বেছে নিয়েছিলেন সহজ পথ – কোচ তাড়ানোর। কথা চলছিল অনেকের সঙ্গেই। শেষ পর্যন্ত শিকে ছিঁড়ল ৬৯ বছর বয়স্ক অ্যাডভোকাটের। নেদারল্যান্ডসের দায়িত্ব নিলেন তৃতীয়বার। এবার সবচেয়ে বয়স্ক হিসাবে গাস হিডিঙ্কের রেকর্ড ভেঙে।

    তবে, অ্যাডভোকাটের সহকারী হিসাবে গুলিটের নাম ঘোষণা করে বিতর্ক খুঁচিয়ে তুলেছে ডাচ ফুটবল সংস্থা।

    ১৯৯৪ বিশ্বকাপের সপ্তাহ তিনেক আগে গুলিট জানিয়ে দিয়েছিলেন, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছেন না তিনি, ‘ব্যক্তিগত কারণে’। বিশ্বকাপে না-যাওয়ার ব্যক্তিগত কারণ থাকতেই পারে, ১৯৭৮ সালে জোহান ক্রুয়েফ দেখিয়েছিলেন। তার ১৬ বছর পর গুলিট। এবং নেপথ্যে আবারও ক্রুয়েফ!

    গুলিট সেই মরসুমে এসি মিলান থেকে জোর করেই গিয়েছিলেন সাম্পদোরিয়ায়। ১৫ গোল মরসুমে, সাম্পদোরিয়াকে এনে দিয়েছিলেন ইতালীয় কাপ। এসি মিলানের সভাপতি সিলভিও বার্লুসকোনি স্বীকার করেছিলেন, গুলিটকে ছেড়ে দেওয়া তাঁর সবচেয়ে বড় ভুল।

    নেদারল্যান্ডসের কোচ অ্যাডভোকাট আবার গুলিটকে বসিয়ে দিয়েছিলেন ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ম্যাচে। বিশ্বের সংবাদমাধ্যমে খবর ছিল, নেদারল্যান্ডসের কোচ হিসাবে ক্রুয়েফ এলেই একমাত্র ফেরার সম্ভাবনা গুলিটের। আর্থিক চুক্তি নিয়ে সমস্যায় ক্রুয়েফ আসেননি। থেকে গিয়েছিলেন অ্যাডভোকাট। ১৯৯৩ সালের শেষ দিকে অ্যাডভোকাট নিজেই যোগাযোগ করেছিলেন গুলিটের সঙ্গে। দুজনে জানিয়েছিলেন, পরস্পরের সঙ্গে কাজ করতে রাজি। কিন্তু, বিশ্বকাপের ২১ দিন আগে গুলিট সরিয়ে নিয়েছিলেন নিজেকে।

    অ্যাডভোকাট এখন আছেন ফেনারবাচে-তে। তুরস্ক কাপ শেষ না হওয়া পর্যন্ত অ্যাডভোকাট-গুলিট জুটি কাজ শুরু করবেন না। ততদিন ডাচ দলের দায়িত্বে থাকছেন ফ্রেড গ্রিম-ই।

    ডাচ ফুটবল সংস্থার প্রধান জানিয়েছেন, ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের যোগ্যতার্জন নিশ্চিত করতে গিয়েই অ্যাডভোকাটের দ্বারস্থ হওয়া। যে কোনো মূল্যে রাশিয়ায় যেতে চা্য় নেদারল্যান্ডস। সেই কারণেই অ্যাডভোকাটোর অভিজ্ঞতায় আস্থা রাখতে চেয়েছেন তাঁরা।

    ১৯৯৪ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ব্রাজিল আর ২০০৪ ইউরোর সেমিফাইনালে পর্তুগালের কাছে হেরে স্বপ্ন পূরণ হয়নি অ্যাডভোকাটের।

    কিন্তু, ট্যাকটিক্স নিয়ে আবার ঝামেলা লাগবে না তো গুলিটের সঙ্গে?

    No comments