• Breaking News

    সুপার লিগের ফাইনালে, ত্রিমুকুটের হাতছানি ইস্টবেঙ্গলের সামনে

    বৃষ্টিতে খেলা হল না চতুর্থ দিন, পয়েন্টের হিসাবে মোহনবাগানকে পেছনে ফেলল ইস্টবেঙ্গল


    শান্তনু ব্যানার্জি


    ফুটবলে যা-ই হোক, ঘরোয়া ক্রিকেটে রোখা যাচ্ছে না ইস্টবেঙ্গলকে। বৃষ্টির কারণে খেলা ভেস্তে যাওয়ার সুযোগে চিরশত্রুদের পেছনে রেখে সিএবি সুপার লিগের ফাইনালেও উঠল ইস্টবেঙ্গল। মরসুমে তৃতীয় ফাইনাল। আগের দুটিতে, যথাক্রমে সিএবি তিনদিনের লিগ এবং জেসি মুখার্জি ট্রফি, জিতেছিল অর্ণব নন্দীর ইস্টবেঙ্গল। জেসি মুখার্জির ফাইনালের মতোই এবার সিএবি সুপার লিগের ফাইনালেও সামনে কালীঘাট। ২৪ জুন ইডেনে গোলাপি বলের যে ম্যাচ শুরু হবে দুপুর দুটো থেকে। ত্রিমুকুটের হাতছানি এখন ইস্টবেঙ্গলের ক্রিকেটারদের সামনে।

    ক্রিকেটের ডার্বিতে খানিকটা পিছিয়েই ছিল ইস্টবেঙ্গল, চতুর্থ দিনের খেলা শুরুর আগে। ইস্টবেঙ্গল টস জিতে মোহনবাগানকে প্রথমে ব্যাট করতে ডাকলে বাগান তুলেছিল ৩৩২ রান। ইস্টবেঙ্গলের প্রথম ইনিংস শেষ হয়েছিল মাত্র ১৫৯ রানে। কিন্তু, দ্বিতীয় ইনিংসে মোহনবাগান বাধ্য হয় ১১৮ রানে ৮ উইকেটে ইনিংস ছেড়ে দিতে। চোট পেয়ে অনুষ্টুপ মজুমদার ব্যাট করতে পারেননি। আর, অশোক দিন্দা তখন মাঠেই ছিলেন না! বাধ্য হয়ে ইনিংস ছেড়ে দিতে হয়েছিল মোহনবাগানকে।

    ম্যাচের চতুর্থ ইনিংসে জেতার জন্য ইস্টবেঙ্গলকে তুলতে হত ২৯২ রান। তৃতীয় দিন ৪ উইকেটে ১৭১ নিয়ে খেলা শেষ করেছিল ইস্টবেঙ্গল। জিততে হলে চতুর্থ দিন তুলতে হত আরও ১২১ রান, হাতে ছিল ৬ উইকেট। ক্রিজে দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান ছিলেন কৌশিক ঘোষ (৬৬) এবং শুভজিৎ ব্যানার্জি (২৬)।

    মঙ্গলবার সকালে আম্পায়াররা খেলা শুরু করার চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত খেলা হয়নি আর। সোমবারের বৃষ্টির কারণে মাঠ খেলার অনুপযুক্ত ছিল। আম্পায়াররা বাধ্য হন ম্যাচ ড্র ঘোষণা করতে।

    যেহেতু এই ম্যাচ শুরুর আগে ইস্টবেঙ্গলের ঘরে ছিল ১৪ এবং মোহনবাগানের ঘরে ১৩ পয়েন্ট, ম্যাচ ড্র হওয়ায় ইস্টবেঙ্গলই চলে গেল ফাইনালে।

    No comments