• Breaking News

    ইস্টবেঙ্গলকে আটকে লিগ জমিয়ে দিল মহমেডান

    শান্তনু ব্যানার্জি


    কলকাতা ফুটবল লিগ জমিয়ে দিল মহমেডান স্পোর্টিং। সিএফএল-এ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার কোনও উপায় আর নেই বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যর দলের। কিন্তু, নিজেদের অষ্টম ম্যাচে ইস্টবেঙ্গলকে ২-২ রুখে দিয়ে লিগের আকর্ষণ ধরে রাখল, শেষ দিন পর্যন্ত।

    ম্যাচের ৮৬ মিনিটে পর্যন্ত লাল হলুদ শিবির পিছিয়ে ছিল ১-২ ব্যবধানে। কেভিন লোবোর পাস থেকে উইলিস প্লাজার গোলে সমতা ফিরলে স্বস্তি কল্যাণীর গ্যালারিতে। কতটা চাপে ছিলেন কোচ জামিল, বোঝা গিয়েছিল প্রতিক্রিয়াতেই। প্লাজার গোলের সঙ্গে সঙ্গেই আবেগে গা না ভাসিয়ে মাটিতে মাথা ছুঁইয়ে তাঁর আরাধ্য আল্লাকে কৃতজ্ঞতা জানাতে ভোলেননি কোচ।

    আর প্লাজাও ক্লাব কর্মকর্তা থেকে শুরু করে সমর্থক সকলকেই বুঝিয়ে দিলেন, ফুরিয়ে যাননি তিনি। লিগের তৃতীয় ম্যাচে পিয়ারলেসের বিরুদ্ধে গোল পেয়েছিলেন। মাঝে চার ম্যাচে গোল নেই। আবার পেলেন যখন সবচেয়ে জরুরি। লোবো আড়চোখেই দেখে নিয়েছিলেন বোধহয়, এগিয়ে আসছেন প্লাজা, ডানদিক দিয়ে। ছোট টোকায় বল বাড়িয়ে রেখেছিলেন। ডানপায়ের দুরন্ত শটে জাল কাঁপিয়ে দেন প্লাজা।

    ম্যাচের ২ মিনিটে মেহমুদ আল আমনার দুরন্ত ভলিতে এগিয়ে গিয়েছিল ইস্টবেঙ্গল। ১-১ করেছিলেন জিতেন মুর্মু, ২৩ মিনিটে কালু ওগবার ডান পায়ের আউটস্টেপের পাস থেকে। ৬৭ মিনিটে মহমেডানকে এগিয়ে দেওয়ার পথেও জিতেনের পা। ডান থেকে থেকে তাঁর বাড়ানো পাস থেকে ক্যামেরুনের দিপান্দা দিকার গোলে ২-১। শেষে প্লাজার গোল। চারটি গোলই কিন্তু দেখার মতোই।

    ম্যাচে পিছিয়ে পড়লেও অন্তত তিনবার বার এবং পোস্টের কারণে ফিরে আসতে হয়েছিল ইস্টবেঙ্গলকে। প্রথমার্ধে ১২ মিনিটে রাইট উইং থেকে লালরাম চুল্লোভার ক্রস প্লাজার সামনে পড়লে জোরালো শট নিয়েছিলেন যা ফিরে এসেছিল ক্রসবারে ধাক্কা খেয়ে। ৫৫ মিনিটে ফের প্লাজার শট, এবারও সাদা কালো শিবিরের গোলকিপার শঙ্কর রায় পরাস্ত, কিন্তু, আটকে দেয় পোস্ট। মাঝে, ৩২ মিনিটে চুল্লোভার শটও ফিরেছিল গোলপোস্টে লেগে।

    মহমেডান স্পোর্টিংও ৪৪ মিনিটে গোলের সুযোগ হাতছাড়া করেছিল। রাইট উইং থেকে শেখ ফৈয়াজের পাস ছিল দিকার জন্য। কিন্তু, গোল করতে ব্যর্থ দিকা তখন। ৭১ মিনিটে দিপেন্দু দুয়ারির শট বাঁচিয়ে দেন ইস্টবেঙ্গলের গোলকিপার লুইস ব্যারেটো।

    সাত ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে কলকাতা লিগের শীর্ষে ছিল মোহনবাগান। সপ্তম ম্যাচে প্রথমবার পয়েন্ট হারিয়ে ইস্টবেঙ্গলও এখন ১৯ পয়েন্টেই। যদিও গোল পার্থক্যে শীর্ষেই থাকল খালিদ জামিলের ইস্টবেঙ্গল। দুই দলেরই বাকি দুটি করে ম্যাচ। শেষ ম্যাচ পরস্পরের বিরুদ্ধে, আগামী রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, শিলিগুড়িতে। কলকাতা লিগের ফয়সালা হতে চলেছে শিলিগুড়িতেই, নিশ্চিত!

    No comments