• Breaking News

    পুরনো অনুরাগীদের সামনে ভাল ফলের আশায় কোপেল

    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ


    কোচি, ২৩ নভেম্বর – পরিচিত অনুরাগীদের সামনে ফিরে আসছেন স্টিভ কোপেল আবার। গতবার কেরালা ব্লাস্টার্সকে নিয়ে গিয়েছিলেন ফাইনালে। এবার তিনি জামশেদপুরে। শুক্রবার খেলতে আসছেন কোচিতে, তাঁর প্রিয় ইয়েলো আর্মির বিরুদ্ধেই।

    ‘কোচি আমার কাছে বড়ই সুখের জায়গা। পুরনো স্টেডিয়াম, পুরনো ভক্তরা এবং কিছু পুরনো ফুটবলারের সঙ্গেও দেখা হবে। অনেক স্মৃতি, অধিকাংশই সুখের। রাস্তায় যে অভ্যর্থনা পেয়েছি, ভুলতে পারব না। লোকে মনে রেখেছে দেখে কার না ভাল লাগে! কিন্তু, এবার নতুন মরসুম এবং আমার কাজ এবার নতুন একটি ক্লাবের হয়ে। ফুটবলে অবশ্য এমন হয়েই থাকে,’ বলেছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের প্রাক্তন উইঙ্গার। কোচির মঠে কেরালার অনুরাগীদের সমর্থনের তীব্রতার যিনি বরাবরের সমর্থক।

    কিছু ফুটবলারও যেমন কোপেলের সঙ্গেই ফিরছেন এই মাঠে, থাকছেন তাঁর সহকারী ইসফাক আমেদও। প্রাক্তন দলের বিরুদ্ধে যিনি কাজে লাগাবেন তাঁর ভাবনা। ইসফাক আগে খেলেছিলেন কেরালার হয়ে, এবার জামশেদপুরে যোগ দিয়েছেন টেকনিক্যাল স্টাফ হিসাবে। এবং কোপেল পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন, এক পয়েন্টের জন্য নয়, ‘তিন পয়েন্টের জন্যই খেলব’। জামশেদপুর এবং কেরালা ব্লাস্টার্স, দুটি দলই এবারের হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগের প্রথম ম্যাচ থেকে একটি করে পয়েন্ট ঘরে তুলেছে ০-০ ড্রয়ের পর।

    কেরালা ব্লাস্টার্সের প্রধান কোচ রেনে মেউলেনস্টীনের আইএসএল-এ প্রথম রাতটা ছিল হতাশাজনক। এটিকে-র বিরুদ্ধে নিজেদের মাঠেই তাঁর দল বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে দশটা শট নিলেও গোলে রাখতে পেরেছিল মাত্র পাঁচটি। মেউলেনস্টীন স্বীকার করেছেন যে, এ ব্যাপারে আরও অনেকটাই উন্নতি করতে হবে এবং অনেকটা উন্নতি করেওছে দল, মাঝের এই দিনগুলোতে।

    ‘স্টিভকে চিনি, জানিও যে ওর দলকে হারাতে বেগ পেতেই হবে। ডাইরেক্ট ফুটবলে বিশ্বাসী স্টিভ, যে কোনও অসতর্ক সময়ে বিপাকে ফেলতে পারে। সংগঠিত দল ওর, পরিশ্রমী এবং স্টিভের দলের বিরুদ্ধে গোল করা সবসময়ই কঠিন। ফলে, বেশ ভাল খেলতে হবে আমাদের, সতর্ক থাকতেই হবে, মাঠে প্রচুর এনার্জিও দেখাতে হবে,’ বলেছেন ডাচ কোচ।

    প্রথম ম্যাচের জড়তা এবং আশঙ্কা ঝেড়ে ফেলে আরও কয়েকটি ম্যাচের মধ্যেই সেরা ছন্দে চলে আসবে দুটি দলই, মনে করছেন দুই কোচই।

    ডাচ কোচ আরও জানিয়েছেন যে, দিমিতার বের্বাতভ হয়ত খেলবেন স্ট্রাইকারের পেছনে ’হোল’ থেকে, যেখানে খেলেই তিনি সবচেয়ে কার্যকরি ভূমিকা নিতে পেরেছিলেন আগের ম্যাচে। শুরুতে একা স্ট্রাইকার হিসাবে খেলতে গিয়ে ততটা কার্যকরি মনে হয়নি কারণ সেভাবে বল পাচ্ছিলেন না পেছন থেকে।

    ‘দলে গুণগত উৎকর্ষের অভাব নেই। নিশ্চিত করতে হবে যাতে ফুটবলারদের সেই গুণগুলো ঠিকঠাক কাজে লাগানো যায়। বেশ কয়েকজন আছে যারা বিভিন্ন জায়গায় খেলতে পারে। ফলে, আক্রমণে ঘুরিয়েফিরিয়ে সবাইকেই ব্যবহার করতে পারি। একই সঙ্গে এভাবে খেলালে দল নিয়ে বিপক্ষের বিভ্রান্তিও বাড়ে,’ বলেছেন। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের প্রাক্তন ডিফেন্ডার ওয়েস ব্রাউন খেলবেন কিনা তা নিয়ে অবশ্য এখনও সুনিশ্চিত কিছু জানাতে পারেননি।

    কোপেল আবার মনে করছেন তাঁর দলকে বিচার করার মতো ফুটবল এখনও খেলা হয়নি এই মরসুমে। তাই ঠিক কেমন খেলবে দল বা দলের চরিত্র ঠিক কেমন, বোঝার জন্য আরও কয়েকটা ম্যাচ জরুরি। কিন্তু যা নিয়ে সন্দেহ নেই, বের্বাতভের মতো বেশ কয়েকজন ফুটবলার শুক্রবার রাতে মাঠে থাকবেন, চোখের পলকে ম্যাচের গতিপ্রকৃতি পাল্টে দিতে পারেন যাঁরা।

    No comments