• Breaking News

    প্রিভিউ পুনে-দিল্লি: একধাপ এগোতে চাইছেন পোপোভিচ

    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ


    পুনে, ২১ নভেম্বর – হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগের (আইএসএল) ইতিহাসে ছবারের দেখায় এফসি পুনে সিটি একবারই মাত্র হারাতে পেরেছে দিল্লি ডায়নামোসকে। তাই চতুর্থ আইএসএল-এ শ্রী শিব ছত্রপতি স্পোর্টস কমপ্লেক্স-এ বুধবার রাতে নতুন মরসুমের প্রথম ম্যাচ খেলতে নামার আগে পুনের নতুন কোচ রানকো পোপোভিচের আশা, আগের থেকে একধাপ এগোবে তাঁর দল।

    ‘প্রথম ম্যাচ। তাই উত্তেজিত আমরা সবাই। বেশ কিছু দিন অনুশীলনের সময় পেয়েছি। সবাই তৈরি, ফুটবলাররাও মাঠে নামার জন্য অধীর আগ্রহ নিয়ে তাকিয়ে রয়েছে। মনে তো হচ্ছে যা করতে চাইছি আমরা, পারব মাঠে করে দেখাতে,’ বলেছেন সার্বীয় কোচ।

    ঘরের মাঠে প্রথম ম্যাচ খেলার সুবিধার প্রশ্নে পোপোভিচ জানিয়েছেন, ‘সুবিধা কিনা সত্যিই জানি না। যা জানি, জিততে হলে ঘরে এবং বাইরে, দু-জায়গাতেই ভাল খেলতে হবে। হ্যাঁ, ঘরের মাঠে তিন পয়েন্ট পাওয়ার জন্য গ্যালারির সমর্থনও পাব। কিন্তু, শুধু সেই কারণেই আমাদের খেলার ধরনে কোনও পরিবর্তন হবে না।’

    বয়স পঞ্চাশ। এবারই প্রথম এসেছেন ভারতে কোচিং করাতে। অতীতের রেকর্ড যথেষ্ট উজ্জ্বল। শুরু থেকেই ভাল ফল দেখিয়ে এসেছেন আগের সব দলেই। আলাদা করে সময় নেননি গুছিয়ে নেওয়ার জন্য। স্পেনের লিগের দ্বিতীয় ডিভিশনে রেয়াল জারাগোজার দায়িত্ব নিয়েই দলকে নিয়ে গিয়েছিলেন প্লে অফে। গত বছর থাইল্যান্ডেও নিজের প্রথম বছরেই বুরিরাম ইউনাইটেড এফসি-কে এনে দিয়েছিলেন থাই কাপ জয়ের গৌরব। এফসি পুনে সিটির ভক্তরা এবার আশা করছেন যে, একই রকম সাফল্য পুনেতেও এনে দেবেন সার্বীয় কোচ।

    নতুন কোচের হাতে নানা অস্ত্র এবার। গতবারের সর্বোচ্চ গোলদাতা মার্সেলিনিও আছেন, দিল্লি ডায়নামোস থেকে যিনি এবার চলে এসেছেন পুনে-তে। সঙ্গে আবার কিন লুইসও। ওই দুই তারকার দিকে নজর থাকবে সবারই। গত বছর দুজনে জুটিতে ১৪ গোল করেছিলেন।

    দিল্লি ডায়নামোসের লক্ষ্য অন্য। গত বছর যত দূর এগোন গিয়েছিল তার ওপর ভিত্তি করেই এবার আরও এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে তারা। গত তিন বছরের আইএসএল ইতিহাসে দুবার প্লে অফে খেলেছে দিল্লি। কিন্তু একবারও পৌঁছতে পারেনি ফাইনালে। নতুন কোচ এবারও। স্পেনীয় মিগেল আনখেল পর্তুগালের লক্ষ্য স্বাভাবিকভাবেই দলকে ফাইনালে নিয়ে যাওয়া।

    ‘শুরুটা ভাল হওয়া জরুরি। প্রথম ম্যাচেই পরীক্ষা হয়, দেখে নেওয়া যায় দল কতটা তৈরি এবং কী কী করতে পারে। আমার তো যা মনে হচ্ছে, যে কোনও দলই জিততে পারে,’ বলেছেন পর্তুগাল। ম্যাচের আগে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে।

    গতবারের বেশ কয়েকজন তারকাকে হারালেও দিল্লি কিন্তু তাঁদের পরিবর্ত হিসাবেও এনেছে বেশ কয়েকজন দুর্দান্ত ফুটবলারকে। পর্তুগালের দলের আক্রমণে নাইজেরীয় ফরোয়ার্ড কালু উচে অন্যতম প্রধান আকর্ষণ।। নেদারল্যান্ডস থেকে স্ট্রাইকার জিয়োন ফেরনানদেজ-কেও আনা হয়েছে যাতে সাহায্য করতে পারেন উচে-কে।

    বুধবারের বিপক্ষ সম্পর্কে জানতে চাওয়ায় পর্তুগাল বলেছেন। ‘পুনে বেশ ভাল দল। মার্সেলিনিও ও আলফারোর মতো বেশ কয়েকজন দুর্দান্ত ফুটবলার দলে। পুনে-তে এসে খেলাও বেশ কঠিন। আমরা জেতার চেষ্টাই করব, আমার কাছে যা সবচেয়ে জরুরি। আরও দেখতে হবে যে বাকি দলগুলো কেমন খেলছে এই প্রতিযোগিতায়, তাদের খেলার ধরনও বুঝে নিতে হবে।’

    No comments