• Breaking News

    জামশেদপুর-এটিকে প্রিভিউ : বকলমে লড়াইয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডও!

     

    আইএসএল মিডিয়া রিলিজ

    জামশেদপুর, ৩০ নভেম্বর – দুই শহরের দূরত্ব ৩০০ কিলোমিটার। আর দুই দলের পার্থক্য এক পয়েন্টের! এমনকি সেখানেও নবাগত জামশেদপুর এফসি এক পয়েন্টে এগিয়ে গতবারের চ্যাম্পিয়ন এটিকে-র চেয়ে। চতুর্থ হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগে জামশেদপুর প্রথম দুটি ম্যাচে ড্র করে দু-পয়েন্ট পেয়েছে, যদিও এখনও কোনও গোল করতে পারেনি ১৮০ মিনিটের ফুটবলে। উল্টোদিকে এটিকে প্রথম খেলায় কেরালা ব্লাস্টার্সের সঙ্গে ০-০ ড্রয়ের পর দ্বিতীয় ম্যাচে নিজেদের মাঠে ১-৪ হেরেছিল এফসি পুনে সিটির কাছে।

    দুই ইংরেজ ম্যানেজার স্টিভ কোপেল এবং টেডি শেরিংহ্যাম খেলেছিলেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে। শুক্রবার তাঁরা মুখোমুখি। দুই ক্লাবই চতুর্থ আইএসএল-এ তাদের প্রথম জয়ের সন্ধানে। কিন্তু, জামশেদপুরের কাছে এই ম্যাচের গুরুত্ব বেশি কারণ, প্রথমবার তারা খেলবে ঘরের মাঠে।

    ‘ঝাড়খন্ডে ক্রিকেট ম্যাচ হলে স্টেডিয়াম ভরে যেতে দেখেছি। তাই ফুটবল ম্যাচেও স্টেডিয়াম ভর্তি হলে দেখতে ভালই লাগবে। আমরা সবাই গর্বিত ইতিহাসের অংশ হতে পেরে,’ বলেছেন জামশেদপুরের মিডফিল্ডার মেহতাব হোসেন।

    কোপেলের ইঙ্গিত, প্রথম দুটি অ্যাওয়ে ম্যাচের তুলনায় একটু হলেও দল অন্যরকম খেলবে ঘরের মাঠে। কাজেই সমর্থকরা বাড়তি কিছু আশা করতেই পারেন।

    ‘এবার ঘরের দল হিসাবে চাপটা আমাদের ওপরেই। তিন পয়েন্ট পাওয়ার দিকেই নজর থাকবে শুক্রবারের ম্যাচে,’ বলেছেন কোপেল।

    কলকাতা থেকে ট্রেনে আরও একটি শহরে আসার অভিজ্ঞতাও সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে ভাগ করে নিয়েছেন শেরিংহ্যাম। তাঁর ভাল লেগেছে জামশেদপুরের পরিকাঠামো। তবে, গত ম্যাচে হারের হতাশা এখনও সঙ্গী তাঁর, জানাতে ভোলেননি।

    ‘আগের ম্যাচে হেরেছি বলেই এই ম্যাচটার গুরুত্ব বেশি আমাদের কাছে। কিন্তু লিগে আগের ম্যাচের ফলাফল ভুলে পরের ম্যাচের জন্য প্রস্তুত হওয়াটাই কাজ, আমরা সেটাই করেছি,’ বলেছেন শেরিংহ্যাম।

    এই মরসুমে এটিকের সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে তাদের ফরোয়ার্ড লাইন এবং শে্রিংহ্যাম জানিয়ে দিয়েছেন, তৃতীয় ম্যাচেও পাচ্ছেন না তাঁর প্রধান স্ট্রাইকার রবি কিনকে। চোট এখনও পুরোপুরি সারেনি। ‘আশা করছি দ্রুতই ফিরে আসবে মাঠে,’ বলেছেন এটিকের কোচ।

    কিনের ফিরে আসা আরও গুরুত্বপূর্ণ কারণ ফিনল্যান্ডের স্ট্রাইকার নিয়াজি কুকি এখনও গোলের দেখা পাননি। আরও যা গুরুত্বপূর্ণ, বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে দুটি ম্যাচে ২৩ বার শট নিয়েছেন এটিকের ফুটবলাররা, যার মধ্যে ১৪বারই তিনকাঠির বাইরে মেরেছেন তাঁরা। অথচ, বলের দখল তাঁদের পায়েই থেকেছে। আর রক্ষণও পুনে সিটির বিরুদ্ধে ভুল করছিল বারবার। প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত শুরুর দিন যার আভাস পাওয়া যায়নি একেবারেই।

    কোপেলেরও দুশ্চিন্তার কারণ তাঁর দলের ফরোয়ার্ডরা। প্রতি আক্রমণ নির্ভর খেলা তাঁদের। রক্ষণ সংগঠনে তাঁর মুন্সিয়ানা দেখিয়ে দিয়েছেন, দুটি বাইরের ম্যাচে এখনও একটিও গোল খায়নি জামশেদপুর। কিন্তু, ম্যাচ জিততে হলে গোলও করতে হবে, যা নিয়েই ভাবনা।

    শুক্রবার ১ ডিসেম্বর জামশেদপুরে খেলা শুরু রাত আটটায়।

    No comments